নির্বাচনী সহিংসতা: বিভিন্ন স্থানে প্রার্থীসহ আহত দেড় শতাধিক

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সোমবারও দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা হয়েছে। এতে সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন দেড় শতাধিক ব্যক্তি। যানবাহন ভাংচুর, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীদের নির্বাচনী অফিসে আগুন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ফরিদপুরে সড়ক অবরোধ ও থানা ঘেরাও করা হয়। টাঙ্গাইলের মধুপুরে হামলা হয় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতার ওপর। কালিহাতী আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে আওয়ামী লীগ। চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে বোমা বিস্ফোরণ করে দুর্বৃত্তরা।

এছাড়া চট্টগ্রামে বিএনপির প্রার্থী ডা. শাহাদত হোসেনের বাসায় পুলিশ তাণ্ডব চালিয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়েছে। যুগান্তর রিপোর্ট, ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ফেনী ও সোনাগাজী : ফেনী-৩ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী মো. আকবর হোসেনের গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। সন্ধ্যা ৭টার দিকে সোনাগাজী উপজেলার বগাদানা ইউনিয়নের তাকিয়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রার্থী আকবর হোসেনসহ কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মী মারাত্মক আহত হয়েছেন। এ সময় তাদের তিনটি মাইক্রোবাস ও দুটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়।

এদিকে সোনাগাজীর আলমপুরে পেট্রলের আগুনে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছয়টি বসত ঘর পুড়িয়ে ছাই করে দেয়ার ঘটনায় প্রতিবাদ সভা করেছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোমবার সন্ধ্যায় ডিবি পুলিশ আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিনকে আটক করেছে।

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) : ঢাকা-২ আসনে বিএনপি প্রার্থী ব্যারিস্টার ইরফান ইবনে আমানের নির্বাচনী গণসংযোগে হামলার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সকালে সাভারের আমিনবাজারে এ হামলা হয়। এতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত ও বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইরফান ইবনে আমান।

তিনি অভিযোগ করেন, সাভার থানার ওসির নেতৃত্বে স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় তিনি সোমবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

সাভার থানার ওসি আবদুল আউয়াল জানান, আমিনবাজারে যুবলীগের প্রোগ্রাম ছিল। বিএনপি প্রার্থী সেখান দিয়ে গণসংযোগ চালানোর সময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক করা হয়েছে।

উজিরপুর (বরিশাল) : উজিরপুরে আওয়ামী লীগ-বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় বিএনপি প্রার্থীর দুটি নির্বাচনী অফিস, দুটি প্রাইভেট কার ও আটটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়। এতে সাংবাদিকসহ উভয় পক্ষের ৫০ জন আহত হয়েছে।

সোমবার বেলা ১টায় উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নের ডাবেরকুল চৌরাস্তায় এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর বিএনপির প্রার্থী এস সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু গণসংযোগ না করতে পেরে বিকাল ৩টায় উপজেলা বিএনপির মাতৃমঙ্গল কার্যালয়ে এসে সংবাদ সম্মেলন করেন। বরিশাল সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কার্যালয় ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবিসহ আসবাব ভাংচুর করে দুর্বৃত্তরা। পাশাপাশি নৌকার পোস্টার ছিঁড়ে তা পুড়িয়ে ফেলা হয়। রোববার গভীর রাতে ইউনিয়নের রাজারচরে এ ঘটনা ঘটে। কোতোয়ালি থানা পুলিশের এসআই শামীম জানান, এ ঘটনায় সোমবার মামলা করা হয়েছে।

দুমকি ও দশমিনা (পটুয়াখালী) : দুমকিতে হেলমেট পরিহিত সন্ত্রাসীদের হামলায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. খলিলুর রহমানসহ সাত নেতাকর্মী আহত হয়েছে। সোমবার দুপুরে লেবুখালী ইউনিয়নের কার্তিকপাশা বুদ্ধিজীবী এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। দুমকি থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, এ রকম কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এছাড়া রোববার সন্ধ্যায় দশমিনায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের মিছিল থেকে উপজেলার বেতাগী সানকিপুর ঠাকুর হাটে ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ খানের দোকানে হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে বিএনপিকর্মী ইউসুফ ও মাগার খলিল গুরুতর আহত হন।

ফরিদপুর ও ভাঙ্গা : সদরপুরের পিয়াজখালি বাজারে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ ও এমপি মজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। রোববার সন্ধ্যায় সংঘর্ষের পর উভয় দলে ২৫ সমর্থক আহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ঢেউখালি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক ব্যাপারীকে আটক করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এমপি নিক্সনের সমর্থকরা ভাঙ্গা, পুলিয়া, পৌরসভা এলাকা, হামেরদী, পুকুরিয়া ও সদরপুরসহ বিভিন্ন মহাসড়ক ও ফিডার সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ ও সদরপুর থানা ঘেরাও করে রাখে। রাত ১২টায় চেয়ারম্যানকে ছেড়ে দিলে অবরোধ তুলে নেয়।

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) : কুলাউড়ায় রোববার রাতে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিস ধানের শীষের সমর্থকরা হামলা চালিয়ে অফিস ভাংচুর করেছে। এ সময় আওয়ামী লীগের পাঁচ কর্মী-সমর্থক আহত হন।

কালকিনি (মাদারীপুর) : মাদারীপুর-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী আনিসুর রহমান খোকন তালুকদারের নির্বাচনী অফিস ভাংচুর চালিয়েছে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা। তাদের বাধা দিতে গিয়ে বিএনপির পাঁচ নেতাকর্মী আহত হয়। রোববার রাত ৯টার দিকে উপজেলার সাহেবরামপুরে এ ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম-৯ আসনে বিএনপির প্রার্থী কারাবন্দি ডা. শাহাদাত হোসেনের বাসায় পুলিশ তাণ্ডব চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। সোমবার বিকাল ৫টায় নগরীর বাদশাহ মিয়া সড়কের নিজ বাসায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন ডা. শাহাদাতের মা শায়েস্তা খানম। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘রোববার রাত আড়াইটা থেকে তিনটার দিকে ২-৩টি গাড়িতে করে ২০-২২ জন পুলিশ তাদের বাসায় এসে তল্লাশির নামে তাণ্ডব চালিয়েছে। আমরা এখন জীবন নিয়ে শঙ্কিত। তিনি আরও অভিযোগ করেন, শুধু এই বাসায় নয়, আমার নিজের বাড়ি বাকলিয়াতেও পুলিশ তাণ্ডব চালাচ্ছে।

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) : জীবননগর উপজেলা শহরের বাসস্ট্যান্ডে রোববার রাত পৌনে ১২টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। এর কয়েক মিনিট পর শহরের পোস্ট অফিসপাড়ায় জীবননগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু মো. আবদুল লতিফ অমলের বাড়িতে আরেকটি বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অমল বলেন, আওয়ামী লীগ অফিসে এবং আমার বাড়িতে জামায়াত-বিএনপির দুর্বৃত্তরা বোমা হামলা চালিয়েছে।

কালাই (জয়পুরহাট) : কালাই উপজেলায় জহুরুল ইসলাম নামে বিএনপির এক নেতাকে আওয়ামী লীগের নেতকর্মীরা মারধর করেছে। রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার মাত্রাই-কালাই সড়কের কানমনা-হারাবতি ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিষয়টি অস্বীকার করা হয়েছে।

মধুপুর ও কালিহাতী (টাঙ্গাইল) : মধুপুরে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলীর ওপর নৌকা প্রতীকের কর্মীরা হামলা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তাকে শারীরিকভাবে নাজেহাল করার পাশাপাশি তার নিজের প্রাইভেট গাড়িরও ক্ষতি করেছে। রোববার রাত ৭টার দিকে উপজেলার আউশনারা ইউনিয়নের শাইলবাইদ বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

এছাড়া কালিহাতীতে আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কালিহাতী আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে আওয়ামী লীগ নেতারা। সোমবার এলেঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে লতিফ সিদ্দিকীর কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।

রাজশাহী ও বাঘা (রাজশাহী) : বাঘা-চারঘাট আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও পোস্টার ছেঁড়ার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে। রোববার রাতে পৃথক এসব ঘটনা ঘটে। এছাড়া আতঙ্ক সৃষ্টি করতে মোটরসাইকেল নিয়ে এলাকায় মহড়া দেয়া হচ্ছে বলে বিএনপির কর্মীরা অভিযোগ করেন।

এ ছাড়া দুর্গাপুরে বিএনপি সমর্থক জামাইকে পেটানোর প্রতিবাদ করায় শ্বশুরকেও পিটিয়েছে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। এ সময় এক চা দোকানদারকেও পেটানো হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তিনটি দোকান। সোমবার রাত ৮টার দিকে দুর্গাপুর উপজেলার আমগাছি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন- আমগাছি গ্রামের মাওলানা রুহুল আমিন, তার জামাই হাজের উদ্দিন ও চা দোকানদার জেকের আলী।

খুলনা : নগরীর খানজাহান আলী থানা যোগিপোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের একটি অস্থায়ী নির্বাচনী কার্যালয়ে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনার প্রতিবাদে মিছিল ও সমাবেশসহ সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করা হবে বলে দলীয় সূত্র জানায়।

বুড়িচং (কুমিল্লা) : বুড়িচং উপজেলার ভারেল্লা (দ.) ইউনিয়নের সোন্দ্রমের মজলিশপুরে রোববার রাতে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশের ইন্সপেক্টর আবু ইউসুফ ফশিউজ্জান।

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বজ যোগিনীতে বিএনপির প্রার্থী আবদুল হাইয়ের নির্বাচনী ক্যাম্পে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে নৌকা সমর্থকরা। সোমবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুন্সীগঞ্জ শহর থেকে ৫-৬টি মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটযোগে একদল নৌকার সমর্থক এসে প্রথমে বিএনপির নির্বাচনী ক্যাম্পে ব্যাপক ভাংচুর চালায় । পরে তারা ক্যাম্পটিতে অগ্নিসংযোগ করে চলে যায় ।

ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ) : ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুণ্ডা বাজারে সোমবার বিকালে স্থানীয় বঙ্গবন্ধু পরিষদের অফিস ও বিএনপির নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করা হয়েছে। স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পাল্টাপাল্টি এই ভাংচুরের ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

নোয়াখালী : নোয়াখালীর সদর উপজেলায় বিএনপি নেতাকর্মীদের দোকানে আওয়ামী লীগ হামলা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলাকারীদের বাধা দিতে গেলে পাঁচজনকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে।

রোববার রাত ১০টায় উপজেলা অশ্বদিয়া ইউনিয়নে দক্ষিণ নাজিরপুর গ্রামে ও দাদপুর ইউনিয়নে বাজিদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

Comments

comments