যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অব্যাহত রাখবে জামায়াত

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় যেতে সক্ষম হলে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার করবে জামায়াতে ইসলামী। মিথ্যা অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করে এই দলেরই জ্যেষ্ঠ নেতাদের ফাঁসি দেওয়া হলেও সত্যিকারের অপরাধীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর অঙ্গিকার করেছেন দলটির নেতারা।

দলটির নেতারা বলছেন, বিদ্যমান যে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আছে তার কার্যক্রম অব্যাহত রেখেই ‘প্রকৃত’ মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার নিশ্চিত করার পরিকল্পনা রয়েছে জামায়াতের।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সদস্য ও সিলেট মহানগর দক্ষিণের আমির মাওলানা হাবিবুর রহমান বলেন, ‘দলীয় দৃষ্টিভঙ্গি কী আমি এখনও জানি না,তবে আমরা ক্ষমতায় গেলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অব্যাহত থাকবে। বিচার করবো ইনশাল্লাহ। যুদ্ধাপরাধীদের আইনে যারা পড়বে, তাদের বিচার করবো।’

সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনি ইশতেহারে জানিয়েছে, ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম চলমান থাকবে।’

জামায়াত নেতা মাওলানা হাবিবুর রহমান বলছেন, ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার তারা অব্যাহত রাখার কথা বলেছে। তবে ট্রাইব্যুনাল থাকবে কিনা, কোন পদ্ধতিতে থাকবে, তা বলতে পারবো না।’

গত কয়েক বছরে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হয়েছে জামায়াতের সাবেক আমির মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কামারুজ্জামান, আবদুল কাদের মোল্লা, মীর কাশেম আলীর এবং সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন সাবেক আমির গোলাম আজম, সাবেক নায়েবে আমির দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীসহ অনেকে। এই নেতাদের দলীয় ও সাংগঠনিকভাবে ‘সম্মানের’ সঙ্গেই বিবেচনা করে আসছে জামায়াত এবং দলটির অনুজ ছাত্র শিবির।

জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের মনে করেন,‘আইনি দিক থেকে যদি বলা হয়, তাহলে যুদ্ধাপরাধ নয়, এটা মানবতাবিরোধী অপরাধ। এটার চ্যাপ্টার শেষ হয়ে গেছে। সরকার তো বলেছে, এক্ষেত্রে তারা সফল। এখন নতুন করে কী করবেন? যারা ক্ষমতায় আসবে, তারা বলতে পারবেন। ফলে, জনগণ দেখবেন, বিচার কী হলো না হলো। এই শাস্তি কার্যকর হয়েছে। জামায়াতের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট ভাষায় বক্তব্য রাখা হয়েছে, যে এই বিচার রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে হয়েছে।’

জামায়াতের পক্ষ থেকে বরাবরই বলা হয়েছে, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তুলে আওয়ামী লীগ। ২০১২ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি দলটির সাবেক আমির গোলাম আজম তার বক্তব্যে বলেছেন, ‘২০০১ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মাত্র ৫৮টি আসনে বিজয়ী হয় আর বিএনপি ১৯৭টি আসন পায়। জোটবদ্ধভাবে ওই নির্বাচনে ইসলামপন্থী দলগুলোর শতকরা ২০ ভাগ ভোট একতরফা বিএনপি পাওয়ায় আওয়ামী লীগ মাত্র পাঁচ হাজার থেকে বিশ হাজার ভোটের ব্যবধানে বহু আসন হারায়। আওয়ামী লীগ নির্বাচনে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হওয়ার কারণ হিসেবে বুঝতে পেরেছিল যে,জামায়াতে ইসলামীকে ঘায়েল করতে না পারলে ভবিষ্যতে নির্বাচনে বিজয়ের কোনও আশা নেই। এ উপলব্ধি থেকেই ২০০১ সালের নির্বাচনের পর থেকে জামায়াত নেতাদেরকে যুদ্ধাপরাধীর অপবাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ ব্যাপক প্রচারাভিযান চালায়।’

জামায়াত নেতা এহসানুল মাহবুব জুবায়ের মনে করেন, ‘বাংলাদেশে নির্বাচন এলেই ধর্ম আর যুদ্ধাপরাধের বিষয়টি ওঠানো হয়। সাধারণত এই দুটি বিষয় কেউ বলে না। কিন্তু বর্তমানে আমাদের সমস্যা কী, দুর্নীতি হচ্ছে, লুটপাট হচ্ছে–এসব বিষয়েও মনোযোগ দেওয়ার কথা। সামনে কীভাবে যাবো, সে বিষয়গুলো মূল আলোচ্য হওয়া উচিত। নির্বাচন এবং নির্বাচনি ইশতেহারে এই বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দেওয়া উচিত। কয়েকদিন পরই জাতীয় নির্বাচন, দেশের মানুষই ঠিক করবেন, ভবিষ্যত কাদের হাতে থাকবে। সরকার তো বলেছে, তারা এক্ষেত্রে সফল, সেক্ষেত্রে জনগণ নির্ধারণ করবেন, কতটুকু সফল।’

ফেনী জেলা জামায়াতের আমির একেএম শামসুদ্দিনও বলছেন, তার এ বিষয়ে বলার কিছু নেই।

জামায়াতের নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম বলেন, ‘বিষয়টি স্পর্শকাতর। এ বিষয়ে আলোচনা করিনি। কথা বলতে হলে আলাপ করে মত দিতে হবে।আগে বলবো না।’

Comments

comments