এইচটি ইমামের আত্মীয় ওসি কউশিকের প্রত্যাহার চায় সিরাজগঞ্জবাসী

বিরোধী মতের উপর হামলা মামলা চালালেও নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প পাহারা দিচ্ছে পুলিশ।

সিরাজগঞ্জ (উল্লাপাড়া): বিরোধী মতের ওপর সীমাহীন অত্যাচার আর পক্ষপাতদুষ্ট আচরণে উল্লাপাড়া মডেল থানার ওসি দেওয়ান কউশিক এখন এলকাবাসীর কাছে এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। অরাজকতা ও সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী ক্ষমতাসীনদের জন্য তিনি যেন এক বটবৃক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছেন। সেইসাথে যুক্ত হয়েছেন দলবাজ এসআই আলাল ও পবিত্র কুমার। যারা ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন বলে নিজেরাই দম্ভের সাথে দাবি করে থাকেন।

ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটির ইমামের আত্মীয় পরিচয় দিয়ে জুলুম আর স্বেচ্ছাচারিতার রেকর্ড গড়েছে দেওয়ান কউশিক আহমেদ।

এইচটি ইমামের ছেলে তানভীর ইমাম সিরাজগঞ্জ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হওয়ার আগে থেকেই বিরোধী মতাবলম্বীদের ওপর দমন পীড়ন শুরু করলেও তানভীর ইমামের প্রার্থীতা নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে দমন পীড়নের মাত্রা কয়েকগুণ বৃদ্ধি করেছেন ওসি কৌশিক। নেতা-কর্মী ও জনসমর্থনহীন তানভীর ইমামকে বাড়তি সুবিধা দিয়ে ভোটের ময়দানে জায়গা তৈরী করতে যেন ঠিকাদারী গ্রহণ করেছেন তিনি।

একদিকে বিশ দলীয় জোটের প্রার্থী মাওলানা রফিকুল ইসলাম খানের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণকারীদের নামে মিথ্যা মামলা ও গণগ্রেফতার চালানো হচ্ছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তানভীর ইমামের নির্বাচনী ক্যাম্পে বিশেষ পুলিশী প্রহরার ব্যবস্থা করেছেন ওসি কউশিক। ২০ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীদের অভিযোগ সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যমূলকভাবে নির্বাচনের পরিবেশ বিনষ্ট করে চলেছেন এই দলবাজ পুলিশ কর্মকর্তা।

অন্যদিকে ওসি কউশিক উল্লাপাড়া থানার দুই বিতর্কিত এসআই আলাল ও পবিত্র কুমারকে উস্কে দিয়েছেন গ্রেফতার বাণিজ্যে। বিরোধী মতের নেতা-কর্মীদের বিনা অপরাধে গ্রেফতার করে অস্ত্র, বিস্ফোরক ও মাদকের মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার ভয়-ভীতি দেখিয়ে মোটা অঙ্কের ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এমনকি টাকা না দিলে ক্রসফায়ারে প্রাণনাশের হুমকিও দিচ্ছেন তারা।

এমতাবস্থায় উল্লাপাড়ায় জনমনে পুলিশের আতঙ্ক বিরাজ করছে। তারা অবিলম্বে ওসি কউশিকের প্রত্যাহার চান।

Comments

comments