লেভেল প্লেইং ফিল্ডের হালচালঃ ৩দিনে সহস্রাধিক হামলা, ২১৭১ জন গ্রেফতার

ভোটের বাকি মাত্র ১৫দিন। কিন্তু কোথাও মিলছেনা কোন লেভেল প্লেইং ফিল্ডের দেখা। গত তিনদিনের মধ্যেই সারাদেশে ধানের শীষের নির্বাচন প্রচারণার সময় হামলায় শিকার হয়েছে সহস্রাধিক জায়গায়। গ্রেফতারকরা হয়েছে ২১৭১ জন।

প্রতীক নিবন্ধনের পর থেকেই শুরু হয়েছে নির্বাচন প্রচারণা। সারাদেশে চলছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের্ একতরফা নির্বাচনী প্রচারণা চলছে। কোথাও মিলছেরা ধানের শীষের প্রচারণা। ধানের শীষের প্রচারণায় বের হলে হামলায় শিকার হচ্ছে নেতা কর্মীরা।

গত তিনদিনে সারাদেশে এক হাজারেরও বেশী স্থানে ধানের শীষের নির্বাচন প্রচারনার সময় জামায়তের মহিলা কাউন্সিলর মাসুদা আক্তার, বিএনপির মহা সচিব মির্জা ফখরুলসহ হামলায় শিকার হয়েছে । সারাদেশে গ্রেফতার করা হয়েছে ২ হাজার ১৭১ জন। নির্বাচনী লেভেল প্লেইং নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিশ্লেষকরা।

ঠাকুরগাঁও: গত ১১ ডিসেম্বর  মির্জা ফখরুলের নির্বাচনী প্রচারণার সময় তার গাড়ি বহরে হামলা করে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-১ আসন থেকে নির্বাচন করছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল। ঐদিন তার নির্বাচনী এলাকা দানারহাটে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে গেলে স্থানীয় আওয়ালীগ সন্ত্রসীরা লাঠিসোটা নিয়ে তাদের গাড়ি বহরে হামলা চালায়। ঐসময় ছয়টি গাড়ির গ্লাস ভাংচুর করে ও  মির্জা ফখরুলের সঙ্গে থাকা নেতা কর্মীদের মারপিঠ করে।

নরসিংদী: একই দিনে নরসিংদী-২ (পলাশ) আসনের বিএনপির প্রার্থী ড. আব্দুল মঈন খানের নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা চালায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ঐ সময় বিএনপি নেতাকর্মীদের ১০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও ৪টি মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে যায় সন্ত্রসীরা।

ঝালকাঠি: গত ১৩ই ডিসেম্বর ঝালকাঠি-২ আসনে নির্বাচনী প্রচারণায় চলাকালে বিএনপি প্রার্থী জীবা আমিনা খানের গাড়ি বহরে হামলা ও ভাঙচুর চালায় আওয়ামীলীগের সন্ত্রসীরা। এসময় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা ধানের শীষ প্রচারণার ২টি গাড়ি ভাঙচুর করে।

যশোর: গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে যশোর শহরের মুড়লী এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণার সময় হামলায় শিকার হন বিএনপি প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। ঐসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সাংবাদিকদের উপরও হামলা চালান। এ হামলায় সময় টিভির যশোর প্রতিনিধি জুয়েল মৃধা ও ক্যামেরাপার্সন আবুল কালাম আজাদ, প্রথম আলোর ফটো সাংবাদিক এসানুলদ্দৌলা মিথুন ও লোকসমাজ পত্রিকার ফটো সাংবাদিক এমআর মিলন আহত হয়।

বাগেরহাট: বাগেরহাট-৪ সংসদীয় আসনের মোরেলগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচনী গণসংযোগকালে ধানের র্শীষ প্রার্থী জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ আবদুল আলীম ও তাঁর তিন কর্মীদের উপর হামলাা চালায় সন্ত্রাসীরা।

সাতক্ষীরা: গত তিন দিনে সাতক্ষীরায় জামায়াত ও বিএনপির শতাধিক নেতা কর্মী গ্রেফতার করা হয়েছে। সাতক্ষীরায় একাধিক জায়গায় ধানের শীষের নির্বাচনী প্রচারণার সময় হামলার ঘটনাও ঘটেছে। সাতক্ষীরা-৪ আসনে ধানের শীষের পোস্টার ছাপানো প্রেসে হামলা চালিয়ে পোস্টার পুড়িয়ে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। একই দিনে ধানের শীষের ঝুলানো পোস্টার খুলে ফেলে অগুন ধরিয়ে দেয়। সাতক্ষীরা-২এ ধানের শীষের নির্বাচনী প্রচারণার সময় প্রচারণার মাইক ভাঙচুর করে আওয়ামী লীগ সন্ত্রসীরা।

এছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষে নির্বাচনী প্রচারণার সময় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের হামলার ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু পুলিশ হামলাকারীদের গ্রেফতার না করে পুলিশ উল্টো হামলায় শিকার রোধী দলের নেতাকর্মীদের  গ্রেফতার করছে।

এনিয়ে নির্বাচনী লেভেল প্লেইং ফিল্ড নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, নির্বাচনী প্রচারণায় সবার অধিকার সমান। নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা কিংবা গ্রেফতার কখনও প্লেইং ফিল্ড নয়। এটি নির্বাচন বিধির সুস্পষ্ট লংঘন।

Comments

comments