ধানের শীষের গণমিছিলে আ. লীগ ও পুলিশের বাধা, তাহেরের নিন্দা

কুমিল্লা: কুমিল্লা-১১ চৌদ্দগ্রাম আসনে চলছে এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতি। প্রতীক বরাদ্দের আগে থেকেই বর্তমান রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের নৌকা প্রতীকের সমর্থনে প্রশাসনের সহায়তায় নেতাকর্মীরা মিছিল অব্যাহত রেখেছে। অপরদিকে প্রতীক বরাদ্দের পর ধানের শীষের নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার, হামলা, নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে পুলিশ এবং আ’লীগের দলীয় সন্ত্রাসীরা। প্রশাসনের সহায়তায় এবং কোথাও কোথাও পুলিশের গাড়িতে করে নৌকা প্রতীকের সমর্থকদের ঘুরতে দেখা যায়। এতে তারা আরও উৎসাহিত হয়। আর বিভিন্ন বাজারে অবস্থানরত ধানের শীষের সমর্থক ও কর্মীদের নির্বাচনের দিন না থাকতে হুমকি দেয়া হচ্ছে। পুলিশ প্রশাসন ও আ’লীগ সন্ত্রাসীদের বাধার মুখে ধানের শীষ প্রতীকের পূর্ব নির্ধারিত চৌদ্দগ্রাম বাজারের গণমিছিল ও গণসংযোগ কর্মসূচির সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়েছে।

ধানের শীষ প্রতীকের প্রধান নির্বাচন পরিচালক মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সাত্তার অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার সকালে চৌদ্দগ্রাম বাজারে ধানের শীষের পক্ষে গণমিছিলের অনুমতি চেয়ে পুলিশের নিকট মঙ্গলবার আবেদন করা হয়। পুলিশ বুধবার বিকেলে জানাবে বলে রাত ১০টায় জানায়, কৃষকলীগ দুইদিন আগে আবেদন করেছে। তাই ধানের শীষের মিছিল করা যাবে না। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে কৃষকলীগের কোন প্রকার ব্যানার ছাড়াই ছাত্র ও যুবলীগের শতাধিক কর্মীকে পুলিশ পাহারায় মিছিল করতে দেখা যায়। এ যেন পুলিশ নৌকা মার্কাকে বিজয় করার দায়িত্ব নিয়েছে।

এছাড়া বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা জুপুয়া, ধনিজকরায়, স্থানীয় যুবলীগ সন্ত্রাসীরা কালিকাপুর ইউনিয়নের বিজয়পুর, ছুপুয়া, আবদুল্লাহপুর, ঘোলপাশা ইউনিয়নের হাঁড়িসর্দার বাজার, নারায়নপুর, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার ফালগুনকরা, চান্দিশকরা, কনকাপৈত ইউনিয়নের করপাটি, তারাশাইল, পন্নারা, জঙ্গলপুর, হিংগুলা, চিওড়া ইউনিয়নের ধোড়করা, চিওড়া, ঘোষতলসহ বিভিন্ন এলাকায় ধানের শীষের পোস্টার ছিড়ে ও পুড়ে ফেলেছে। মুন্সিরহাট ইউনিয়নের ফেলনা গ্রামে অস্ত্র মামলার আসামী ইমাম হোসেনের নেতৃত্বে যুবলীগ সন্ত্রাসীরা ধানের শীষের ব্যানার-পোস্টার ছিড়ে ও পুড়ে ফেলে। কিছুক্ষণ পর ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে সাংবাদিক বেলাল হোসাইনের মোটর সাইকেল নিয়ে যায় পুলিশ। বাতিসা ইউনিয়নের চান্দকরা গ্রামে পোস্টার লাগানোর সময় ধানের শীষের কর্মী সবুজকে সন্ত্রাসীরা মারধর করে।

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে পুলিশ ও যুবলীগ নেতাকর্মীদের অব্যাহত সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাবেক এমপি ও ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ডাঃ সৈয়দ আবদুল্লাহ মোঃ তাহের। বিবৃতিতে তিনি বলেন, চৌদ্দগ্রামের ৮০ ভাগ মানুষ ধানের শীষের পক্ষে রয়েছে। জনতার ব্যাপক সাড়া দেখে আ’লীগের মাথা খারাপ হয়ে পড়েছে। তাই পুলিশের সহায়তায় বিভিন্নস্থানে হামলা অব্যাহত রেখেছে। ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে জনগণ ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে ধানের শীষকে বিজয়ী করে আ’লীগের জুলুম-নির্যাতনের জবাব দিবে, ইনশাআল্লাহ। অবিলম্বে নির্বাচনের পরিবেশ শান্ত রাখতে পুলিশ প্রশাসনকে নিরপেক্ষ ভুমিকা এবং নির্বাচন কমিশনকে যথাযথ ভুমিকা পালনেরও আহবান জানান তিনি।

Comments

comments