খাশোগি হত্যা ছিল ‘নৃশংস ও পূর্বপরিকল্পিত’: জাতিসংঘ

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ড ছিল ‘নৃশংস ও পূর্বপরিকল্পিত’- ঘটনার তথ্য-প্রমাণ এমনটাই সাক্ষ্য দেয় বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কর্মকর্তা।

একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, এ ‘সুপরিকল্পিত’ হত্যাকাণ্ডের পেছনে সৌদি কর্মকর্তারাই জড়িত।

আলজাজিরা জানায়, জাতিসংঘের স্পেশাল র‌্যাপোর্চার অ্যাগনেস কলামার্ড বৃহস্পতিবার তার তিন সদস্যের তদন্ত কমিটিসহ খাশোগি হত্যাকাণ্ডের ‘লোমহর্ষক ও ভয়ংকর’ অডিও ক্লিপ শোনেন। তুরস্কের গোয়েন্দা সংস্থা তাদেরকে এ ক্লিপের অংশবিশেষ শোনার সুযোগ করে দেয়।

এক বিবৃতিতে কলামার্ড আরও বলেন, “হত্যাকাণ্ড নিয়ে তুরস্কের তদন্ত কার্যক্রমকেও গুরুতরভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা করেছে সৌদি আরব।”

তিনি বলেন, “তদন্তের জন্য আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসারে পেশাদারিত্বের সঙ্গে কার্যকরী অনুসন্ধান চালানো ও অপরাধস্থল পরিদর্শনে যে সুযোগ ও সময় তুরস্কের গোয়েন্দাদের দেওয়া হয়েছে, তা ছিল একেবারেই সীমিত ও অপ্রত্যাশিত।”

এ ঘটনার তদন্তে এক সপ্তাহব্যাপী তুরস্ক সফর শেষে কলামার্ড বলেন, “তিনি তদন্তকাজে সৌদি আরবও যেতে চান। ইতোমধ্যে দেশটিতে যাওয়ার জন্য আবেদনও করেছেন রিয়াদ কর্তৃপক্ষের কাছে।”

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কড়া সমালোচক হিসেবে পরিচিত ছিলেন জামাল খাশোগি। গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি দূতাবাস প্রবেশের পর নিখোঁজ হন ওয়াশিংটন পোস্টের এই কলামিস্ট।

তুরস্ক ও আন্তর্জাতিক মহলের চাপে পরবর্তীতে তিনি হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন বলে স্বীকার করে নেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে ওঠে আসে, এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান জড়িত। তার নির্দেশেই খাশোগিকে হত্যা করা হয়। এমনকি তার দেহ কেটে ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয় এবং গোপন জায়গা তা সরিয়ে ফেলা হয় বলেও সে প্রতিবেদনে ওঠে আসে।

যদিও সৌদি কর্তৃপক্ষ শুরু থেকে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যুবরাজের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করে আসছে।

Comments

comments