যুবদল নেতার বাড়িতে আগুন, বিএনপি প্রার্থীর গাড়িবহরে হামলা

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ইউনিয়ন যুবদলের এক নেতার বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সোমবার রাতে ঘটা আগুন লাগানোর এ ঘটনা পরিদর্শনে যাওয়ার সময় বিএনপি প্রার্থী জিএম সিরাজের গাড়ির বহরে আজ মঙ্গলবার হামলা হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা তাঁর গাড়িবহরের তিনটি গাড়ি,২০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে বলে অভিযোগ করেছেন জি এম সিরাজ। আজ বেলা ১২টার দিকে ধুনট শহর এলাকায় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দের পর ধুনট উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন স্থানে প্রচারণা শুরু করেছে। গতকাল সন্ধ্যার দিকে এলাঙ্গী বাজার এলাকায় নির্বাচনী প্রচারের সময় ছাত্রদলের দুই কর্মী রাঙ্গামাটি গ্রামের নাদিম হোসেন (২৬) ও মাসুদ রানাকে (২২) এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা মারধর করে। এরপর একপর্যায়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে এলাঙ্গী ইউনিয়ন যুবদলের নেতা রাঙ্গামাটি গ্রামের মুরাদ হোসেনের বসতবাড়িতে পেট্রল ঢেলে দিয়ে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা ওই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে উঠেছে । এতে যুবদল নেতার একটি মোটরসাইকেল, নগদ টাকা সহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল আগুনে পুড়ে যায়। এ ছাড়া দুটি দোকানঘর ভাঙচুর করা হয়েছে। এ খবর পেয়ে ধুনট উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে যায়।

ঘটনাটি দেখার জন্য আজ দুপুর ১২টার দিকে বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজ যুবদল নেতা মুরাদ হোসেনের ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি পরিদর্শনের জন্য রওনা হন। এ সময় জিএম সিরাজ শতাধিক মোটরসাইকেল ও তিনটি গাড়ি নিয়ে ধুনট শহরের কলাপট্টি এলাকায় পৌঁছালে একদল ব্যক্তি হাতে লাঠি-সোঁটা নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা জিএম সিরাজের ব্যক্তিগত জিপ গাড়িসহ দুটি মাইক্রোবাস ও ১০-১২টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে।

পরে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের হামলায় জিএম সিরাজ ও তাঁর নেতা-কর্মীরা ধুনট শহর থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দুরে হুকুম আলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থান নেয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে দুপুর ১টার দিকে হুকুম আলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সংবাদ সম্মেলন করেন বিএনপি প্রার্থী জিএম সিরাজ। এ সময় তিনি বলেন, ‘এলাঙ্গী ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি গ্রামের মুরাদ হোসেনের বাড়িতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা পেট্রল ঢেলে অগ্নিসংযোগ করেছে। এই ঘটনা দেখতে যাওয়ার সময় ধুনট শহর এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আমার গাড়ির বহরে হামলা চালিয়ে আমার ব্যক্তিগত জিপ গাড়িসহ দুটি মাইক্রোবাস ও কমপক্ষে ২০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ইটপাটকেলের আঘাতে আমার দলের ১০-১৫ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মহসীন আলম বলেন, বিক্ষুব্ধ জনগণ এসব ঘটনা ঘটিয়েছে। এসব ঘটনার সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো নেতা-কর্মী জড়িত ছিল না। বিএনপির নেতা-কর্মীরা রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ ও অপপ্রচার করছে।

ধুনট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফারুকুল ইসলাম বলেন, এলাঙ্গী ইউনিয়নের মুরাদ হোসেনের বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ওই রাতেই পরিদর্শন করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ছাড়া বিএনপির প্রার্থীর গাড়ির বহরে হামলাকারীদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments

comments