জাতিসংঘের অধিবেশনে ৩ মাসের শিশু

জাতিসংঘের অধিবেশনে প্রথমবারের মতো যোগ দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জ্যাসিডা আরডার্ন। তার সঙ্গে প্রথমবারের মতো আরো একটি ঘটনা ঘটলো। কেননা প্রধানমন্ত্রী যে সঙ্গে করে নিয়ে গেছেন তার তিন মাসের মেয়েকে। এ সময় মেয়ের সঙ্গে দুষ্টুমি করতেও দেখা যায় তাকে। নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে এ দৃশ্য দেখা যায় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বাবার সাথে সময় কাটাচ্ছেন মেয়ে নেভে

সোমবার অধিবেশন কক্ষে দেখা যায়, নিউজল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জ্যাসিডা আরডার্ন তার তিন মাসের মেয়ে নেভে টি আরোহার সঙ্গে খেলা করছেন। এর কিছুক্ষণ পর তিনি সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন। এ সময় শিশুটির দেখাশোনা করেন তার বাবা গেফোর্ড।

NZ-PM-child
পরিষদের অধিবেশনে বক্তব্য রাখরছন জেসিন্ডা আরডার্ন

আরডার্ন হলেন বিশ্বের দ্বিতীয় নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী; যিনি ক্ষমতায় থাকার সময় সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। অধিবেশনে ‘নেলসন ম্যান্ডেলা পিস সামিট’ বৈঠকে প্রথমবারের মতো বক্তব্য দেয়া আরডার্ন বলেন, তার দেশে দক্ষিণ আফ্রিকার এই নেতার গভীর প্রভাব রয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর তিন মাস বয়সী মেয়ে নেভে এখন তার মায়ের দুধ পান করে। আর তাই ছয় দিনের আন্তর্জাতিক সফরে মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত যে খুব বাস্তবসম্মত সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

জাতিসংঘের অধিবেশনে অংশ নিলো তিন মাসের শিশু
মেয়ের সঙ্গে দুষ্টুমি করছে জ্যাসিডা আরডার্ন

নিউজিল্যান্ডের সংবাদমাধ্যম নিউজ হাবের প্রতিবেদন অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী আরডার্ন বলেন, ‘দেশে থাকা অবস্থায় বেশিরভাগ সময় নেভে আমার সঙ্গে থাকে।’

প্রধানমন্ত্রী আরডার্ন যখন জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশ নেন, তখন তার স্বামী গেফোর্ড মেয়ের দেখাশোনা করেন।

আরডার্ন নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে বলেন, নেভের যত্ন নেয়ার জন্য তিনি তার স্বামীর ভ্রমণ খরচ বহন করবেন। এর আগে, আরডার্ন ছয় মাস মাতৃত্বকালীন ছুটি কাটানোর পর গত আগস্টে কর্মস্থলে ফিরে আসেন।মেয়ে নেভেকে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে একটি পরিচয়পত্রও দেওয়া হয়েছে। সেখানে তাকে উল্লেখ করা হয়েছে নবজাতক হিসেবে।

মেয়ে নেভেকে দেওয়া জাতিসংঘের পক্ষ থেকে পরিচয়পত্র

জাতিসংঘের মূখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আরডার্ন এটা দেখালেন কর্মজীবী মা হয়েও তার চেয়ে আর কেউ নিজের দেশকে এত ভালোভাবে প্রতিনিধিত্ব করতে পারেন না।’

তিনি আরো বলেন, ‘বিশ্ব নেতাদের মধ্যে মাত্র পাঁচ শতাংশ হলেন নারী। তাই যতটা সম্ভব এখানে নারীদের স্বাগত জানানো প্রয়োজন।’

Comments

comments