অবশেষে থাইল্যান্ডের সেই গুহা থেকে সবাই উদ্ধার

থাইল্যান্ডের থাম লুয়াং গুহায় আটকে পরাদের সবাইকেই উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারীরা। সর্বশেষ আটকে থাকা এক কিশোর ফুটবলার এবং তাদের কোচ ইকাপোল চান্টাওয়াং-কে উদ্ধারের জন্য শুরু করা অভিযান সফলভাবে শেষ হয়। এর ফলে ১২ কিশোর ফুটবলারসহ আটকে পরা ১৩ জনের সবাইকেই উদ্ধার করা হলো।

শেষ দুইজনকে উদ্ধারে আজ মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় অভিযান শুরু করে উদ্ধারকারীরা। অভিযানে অংশ নেয় ১৯ জন ডাইভার। এদের মধ্যে ব্রিটিশ, ডেনিশ ডাইভারসহ থাই নেভীর সিল সদস্যরাও ছিলেন। এর আগে গত রবিবার এবং সোমবার অভিযানের দুই দিনে আট কিশোরকে উদ্ধার করা হয়েছিল। আর অভিযানের আজকের দিনে মোট চার কিশোর ফুটবলার এবং তাদের কোচ উদ্ধার হলেন। এর ফলে প্রায় দুই সপ্তাহ পর গুহা থেকে লোকালয়ে আসলো আটকে পরা ব্যক্তিরা। শেষ হলো শ্বাসরুদ্ধকর তিন দিনের অভিযান।

উদ্ধার অভিযানের সফল সমাপ্তি ঘোষণা করে থাই নেভী সিল তাদের ফেসবুক পেইজে লেখে, “১২ ওয়াইল্ড বোরস (ফুটবলাররা) এবং তাদের কোচ এখন গুহার বাইরে। হুয়াহ!”।

সর্বশেষ দফার এই অভিযান চলে টানা ছয় ঘন্টা। স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ছয় মিনিটে তাদেরকে গুহা থেকে বের করে আনে উদ্ধারকারীরা। শেষ দুইজন সহ উদ্ধারকৃত সকলকেই চিয়াং রাই প্রদেশের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। সেখানে আগামী সাতদিন তাদেরকে পর্যবেক্ষণ করা হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ জুন ফুটবল অনুশীলন ঐ গুহায় বেড়াতে যায় ওয়াইল্ড বোরস নামে কিশোরদের ঐ ফুটবল দল। সাথে ছিলেন কোচ। কিশোরদের সকলের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। গুহায় অবস্থানকালে এক পর্যায়ে পথ হারিয়ে গুহামুখ থেকে প্রায় সাড়ে চার কিলোমিটার ভিতরে একটি জায়গায় আটকে পরেন তারা। আটকে পরার নয় দিন পর তাদের অবস্থান সনাক্ত করতে পারে উদ্ধারকারীরা।

মৌসুমী বন্যার কারণে পথ অবরুদ্ধ থাকায় ফুটবলারদের উদ্ধারে ছয় মাস পর্যন্ত সময় লাগতে পারে বলে আগে জানিয়েছিল থাই কর্তৃপক্ষ। তবে বৃষ্টি শেষ হওয়ার অপেক্ষা না করেই গত রবিবার থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়। অভিযানের জন্য ইংল্যান্ড, ডেনমার্কসহ কয়েকটি দেশ থেকে ডাইভার নিয়ে আসে থাইল্যান্ড। বিদেশী ডাইভারসহ এতে অংশ নেয় থাই নেভী সিলের সদস্যরাও।

সূত্রঃ আল জাজিরা

Comments

comments