‘জমি বিক্রি করে চিকিৎসা, জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে নুরু’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুরুর বাবা মো. ইদ্রিস হাওলাদার বলেন, আমি একজন কৃষক। আমার জায়গা জমি বিক্রি করে আজকে আমার ছেলের চিকিৎসার খরচ বহন করছি। যে নির্যাতন করা হয়েছে, আজ আমার ছেলে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

তিনি বলেন, ঢাকা মেডিকেলে নেওয়ার পর তাকে বের করে দেয়া হয়েছে। এরপর যেখানে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয় সেখান থেকেও তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। কোটা সংস্কার আন্দোলন যদি যৌক্তিক হয় তাহলে এই দাবি মেনে নিন।

শুক্রবার (৬ জুলাই) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কোটা সংস্কার আন্দোলনে নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন অভিভাবকদের সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ফাহমিদুল হক বলেন, দেশের সবকিছুই এখন উল্টো দিকে চলছে। যে আক্রান্ত তাকে ধরা হচ্ছে, হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না। অথচ আক্রমণকারী নির্বিঘ্নে ঘুরে বেড়াচ্ছে। হাতুড়ি দিয়ে বর্বরভাবে আঘাত করা হচ্ছে। আমরা এ কোন দেশে বসবাস করছি? এটা উল্টো রাজার দেশ।’

নুরুল হকের বাবা ইদরিস হাওলাদার বলেন, সচেতন নাগরিক হিসেবে তার ছেলে কোটা সংস্কার আন্দোলনে যোগ দিয়েছিল। তাকে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে পেটানো হয়েছে। ছেলের ওপর হামলা হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আজকে আমার ছেলে, কালকে আপনার ছেলে, পরশু দিন তার ছেলে– এভাবেই দেশটা চলবে। আমরা মরে যাবো তারাই বেঁচে থাকবে।’

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কারে প্রজ্ঞাপনের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর একের পর এক হামলা-নির্যাতন হচ্ছে। শীর্ষ নেতাদের আটক করা হয়েছে। এনিয়ে দেশজুড়ে নিন্দা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

Comments

comments