পোল্যান্ডকে হারিয়ে সেনেগালের নাচ

‘এইচ’ গ্রুপের খেলায় মুখোমুখি হয়েছিল সেনেগাল-পোল্যান্ড। শক্তিমত্তায় দুদলই ছিল প্রায় সমানে সমান। তবে জিতে আবারো চমকের ইঙ্গিত দিল সেনেগাল। মস্কোয় পোলিশদের ২-১ গোলে হারিয়েছেন সেনেগালিজরা।

২০০২ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো খেলতে এসেই হইচই ফেলে দেয় সেনেগাল। সেবার সেমিফাইনাল পর্যন্ত খেলে আফ্রিকার দেশটি।

এরপর আর বিশ্বমঞ্চে খেলা হয়নি তাদের। দীর্ঘ ১৬ বছর পর আবারো মঞ্চ মাতাতে এসেছেন তারা। মুসলিম দলটির প্রত্যাশা, ২০০২ সালের পারফরম্যান্সকে ছাপিয়ে যাওয়া। এবারো তেমন কিছু করে দেখাতে দৃঢ় প্রত্যয়ী এর কাণ্ডারিরা।

সেই যাত্রায় সূচনাটা দুর্দান্ত হয় সেনেগালের। শুরুতে অধিকাংশ সময় নিজেদের দখলে বল রাখে দলটি। লক্ষ্যে একাধিকবার শট নিয়ে ভীতি ছড়ায় পোল্যান্ড শিবিরে। শেষ পর্যন্ত তাদের আক্রমণ সামলাতে না পেরে আত্মঘাতী গোলে নিজেদের সর্বনাশ ডেকে আনেন পোলিশরা।

৩৭ মিনিটে থিয়াগো সিওনেকের আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে যায় রবার্ট লেভানডফস্কির দল। পরে গোল পরিশোধ করতে পারেননি তারা। এতে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় সেনেগাল।

দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নেমে আক্রমণের ধার বাড়ায় সেনেগাল। ফলে এগিয়ে যেতেও সময় লাগেনি। ৬১ মিনিটে এমবে নিয়াংয়ের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে দলটি। জেগোস ক্রিখোভিয়াকের লক্ষ্যহীন ব্যাক পাস ক্লিয়ার করতে গোলপোস্ট ছেড়ে অনেকটা এগিয়ে আসেন ভয়চেখ স্ত্রেন্সনে। তবে তা ক্লিয়ার করতে পারেননি পোলিশ গোলরক্ষক। ফলে ফাঁকা জালে বল পাঠান কয়েক সেকেন্ড আগে বদলি নামা নিয়াং।

৮৫ মিনিটে যেন সেই গোলের দায় শোধ করেন ক্রিখোভিয়াক। ফ্রি কিকে দারুণ এক হেডে সেনেগালের জালে বল জড়ান তিনি। বাকি সময়ে আর গোল না হওয়ায় ২-১ গোলে জয়ে নাচতে নাচতে মাঠ ছাড়ে সাদিও মানেরা।

Comments

comments