খাদ্যমন্ত্রীর ইফতারে হট্টগোল, ইফতার করতে পারেনি অনেকেই

কেরানীগঞ্জে খাদ্যমন্ত্রীর সামনে ইফতার নিয়ে হট্টগোল হওয়ায় রোজা রেখেও অনেকে ইফতার না পেয়ে ফিরে গেছেন। মঙ্গলবার হযরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে এমন ঘটনা ঘটে।

ইফতার মাহফিলের ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি। খাদ্যমন্ত্রীর সামনেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও উপস্থিত লোকজন ইফতারের প্যাকেট নিয়ে হট্টগোল শুরু করে দেয়। এ যেন খাদ্যমন্ত্রীর সামনেই খাদ্য নিয়ে হট্টগোল!

এ সময় মন্ত্রীকে বিরক্তি প্রকাশ করতে দেখা যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে অনুষ্ঠানের সঞ্চালক মাইকে বারবার হট্টগোল না করতে অনুরোধ জানান। কিন্তু কিছুতেই ভিড় আর মানুষের চাপ সামলাতে না পেরে একপর্যায়ে পুলিশ গিয়ে সবাইকে অনুষ্ঠানস্থল থেকে সরিয়ে দেন।

এ সময় আয়োজকদের পক্ষ থেকে ইফতার বিতরণ বন্ধ রাখা হয়। ফলে মাগরিবের আজান দেয়ার পরও ইফতার না পেয়ে অনেক রোজাদার ফিরে যান।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যোবায়ের বলেন, ইফতারের প্যাকেট নিয়ে লোকজনের ভিড় এতটাই বেড়ে যায় যে শেষ পর্যন্ত পুলিশকে পরিস্থিতি সামাল দিতে হয়েছে।

এদিকে ইফতার মাহফিলের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, সামনে জাতীয় নির্বাচন। এ লক্ষ্যে দলের ত্রুটি শুধরে ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে এক কাতারে দাঁড়াতে হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া তার নিয়োগকৃত আইনজীবীদের ভুলের কারণে জেলে রয়েছেন। তারা সঠিকভাবে জামিনের আবেদন করেননি বলে সময়ক্ষেপণ হচ্ছে। আসলে বিএনপির লোকজনই চায় না খালেদা জিয়ার জামিন হোক।

হযরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা হাজী আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে আরও বক্তব্য রাখেন, যুবলীগ কেন্দ্রীয় নেতা ইউসুফ আলী চৌধুরী সেলিম, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবু ছিদ্দিক, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জরুল আলম রাজিব, আওয়ামী লীগ নেতা আইকে শাহীন, আনোয়ার হোসেন, অ্যাডভোকেট সমর প্রমুখ।

সূত্র: যুগান্তর

Comments

comments