হজ্জ মিনার থেকে তুলে ফেলা হয়েছে পবিত্র কালেমা!

বিমান বন্দরের সামনে স্থাপিত হজ্জ মিনারে এখন আর কালেমা খচিত নেই

অদ্ভুতুড়ে সব ভাস্কর্যের নামে মূর্তি নির্মাণ করায় খ্যাতি আছে বিতর্কিত ভাস্কর মৃণাল হকের। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের অর্থায়নে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনের গোল চত্বরে এই মৃণাল হক ভাস্কর্যের নামে গড়ে তুলতে শুরু করেছিলেন লালনের মূর্তি। তৎকালীন বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিয়ে পুরো চত্বরে মোট ৫ টি বাউল মূর্তি তৈরী শুরু হলে প্রতিবাদ জানায় রাজধানীর ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীরা। সেই সাথে হজ্জ ক্যাম্পের নিকটবর্তী এই স্থানে দাবি করা হয় হজ্জ মিনার নামে একটি নতুন ভাস্কর্য নির্মাণের।

ধর্মপ্রাণ তৌহিদি জনতার দাবি ও আল্টিমেটামের মুখে বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা এবং বিমানবন্দর থানা পুলিশের উপস্থিতিতে ভেঙে ফেলা হয় বেঢপ আকৃতির বাউল মূর্তিগুলো। পরে সেখানেই নির্মাণ করা হয় মুসলমানদের পবিত্র কালেমায়ে তাইয়্যেবা খচিত হজ্জ মিনার। যার শীর্ষে লেখা ছিল ‘আল্লাহ’ এবং মূল অংশে লেখা ছিল পবিত্র কালেমায়ে তাইয়্যেবা।

২০১৩ সালের গুগলের স্ট্রিট ভিউ থেকেও কালেমায়ে তাইয়্যেবা খচিত অংশ স্পষ্ট দেখা গেলেও বর্তমানে সেখানে কিছুই নেই

আশ্চর্যের বিষয় হলেও সত্য যে, হজ্জ মিনারের মূল অংশ থেকে কৌশলে তুলে ফেলা হয়েছে কালেমায়ে তাইয়্যেবা। ২০১৩ সালের সর্বশেষ আপডেট গুগলের স্ট্রিট ভিউ থেকেও কালেমায়ে তাইয়্যেবা খচিত অংশ স্পষ্ট দেখা গেলেও বর্তমান চিত্র একদমই ভিন্ন। দেখে বোঝার উপায় নেই যে, এখানেই একসময় খচিত ছিল পবিত্র কালেমায় তাইয়্যেবা!

হজ্জ মিনারের কালেমায়ে তাইয়্যেবা খচিত স্থানে এখন কিছুই নেই

এর আগে সামাজিক মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠলেও বিষয়টি নীরবে এড়িয়ে গেছে বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কের সৌন্দর্য বর্ধনে কাজ করলেও এ বিষয়টি এড়িয়ে গেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনও। এ ব্যাপারে তাদের কোন ব্যাখ্যা দিতেও দেখা যায়নি। ৯২ শতাংশ মুসলমানের দেশে রাজধানীতে স্থাপিত কালেমা খচিত ভাস্কর্য থেকে কালেমায় তাইয়্যেবা মুছে ফেলা হলেও এ নিয়ে যেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনই মাথাব্যাথা নেই। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্লিপ্ত ভূমিকায় জনমনে প্রশ্ন জাগছে যে, সরকারের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ নির্দেশে কর্তৃপক্ষই কি জনগণের চোখ ফাঁকি দিয়ে কৌশলে সরিয়ে নিয়েছে এই কালেমা? অন্যথায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পরেও কেন মেরামত করা হয়নি? কিংবা বিভিন্ন সময় মেরামত করা হলেও কেন পবিত্র কালেমায় তাইয়্যেবা মুছে ফেলা হলো?

Comments

comments