ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের আহ্বান হেফাজতের

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত “বায়তুল মুকাদ্দাস পুনরুদ্ধার ও ইসরাইলী আগ্রাসন প্রতিরোধে মুসলিম উম্মাহর করণীয়” শীর্ষক আলোচনা সভায় সংগঠনের মহাসচিব আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরীর বলেছেন, বায়তুল মোকাদ্দাস মুসলমানদের প্রথম কেবল। জেরুসালেম হলো স্বাধীন ফিলিস্তিনের রাজধানী, যা ইসরাইল অন্যায়ভাবে জবর দখল করে রেখেছে। দীর্ঘ ৭০বছর ধরে ফিলিস্তিনের নিরপরাধ মুসলমানদের রক্ত নিয়ে ইহুদীবাদী ইসরাইল হোলি খেলায় মেতে উঠেছে। বিগত ১৫মে অর্ধশতাধিক মুসলমানদের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা এবং ২৫০০ মানুষকে আহত করেছে।

আজ ২৬ মে শনিবার, বিকেল ৩ টায়) চট্টগ্রাম মুসলিম হলে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ইসরাইল একটি অবৈধ সন্ত্রাসীবাদী রাষ্ট্র। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হলো তাদের মদদ দাতা। তেল আবিব থেকে জেরুসালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্থর করা একটি অবৈধ পদক্ষেপ। মুসলমানদের রক্তের ওপর দাঁড়িয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বায়তুল মুকাদ্দাসের পবিত্র ভূমি জেরুসালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধন করে মুসলিম উম্মাহর কলিজায় আঘাত হেনেছে। এটা মুসলিম উম্মাহ মেনে নিতে পারে না।

তিনি বলেন, ইহুদী সাম্রাজ্যবাদী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ লড়াই চালাতে হবে।

আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী আরো বলেন, ফিলিস্তিনিরা আমাদের ভাই। তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় জালিম ইসরাইল ও মার্কিনীদের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী গণ-আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। জারজ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে মুসলিমবিশ্বের সকল কুটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা এবং তাদের সকল পণ্য বর্জন করার জন্য তিনি মুসলিম রাষ্ট্রসমূহের প্রতি আহবান জানান। ফিলিস্তিনি মুসলমানদের ওপর ইসরাঈলী বর্বরোচিত হামলা বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে জাতিসংঘ, ওআইসি এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহ এবং বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান

আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী আরো বলেন, রমজান সহমর্মিতার মাস, মুমিনগণ একে অপরকে সাহায্য সহযোগিতা করে, গরীব দুঃখিদের দান খয়রাত করে থাকে। এতে সামাজিক বন্ধন ও ভ্রাতৃত্বের ঐক্য তৈরী হয়। সমাজ জীবনে শৃঙ্খলা ও কল্যান বয়ে আনে। সমাজের গরীব, মিসকিন, ইয়াতিম, অসহায় সাধারণ মুসলমানদের মানবতাবোধ জাগ্রত হয়।

ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম ও হেফাজত নেতৃবৃন্দেও মধ্যে আরো বক্তব্য রাখবেন, দারুল উলুম হাটহাজারীর বিশিষ্ট মুহাদ্দিস আল্লামা শেখ আহমদ, অধ্যাপক ড. আ ফ ম খালিদ হোসেন, মাওলানা আহমদ দিদার কাসেমী, মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী, হাটহাজারী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা নাসির উদ্দিন মুনরি, খতীবে আযম রহ. এর সাহেবজাদা মাওলানা হাফেজ সোহাইব নোমানী, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, নাসিরাবাদ মাদরাসার মুহতামিম মওলানা আবদুল জাব্বার, সেগুনবাগান কমপ্লেক্সের চেয়ারম্যান মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ তৈয়ব, আলহাজ আবদুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা মাহবুবুর রহমান হানিফ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী প্রভাষক মাওলানা মুফতি হুমায়ুন কবির, মাওলানা আনম আহমদুল্লাহ, মাওলানা সরোয়ার আলম, মাওলানা জয়নাল আবেদীন কুতুবী, মাওলানা শামসুল হক। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন, মাওলানা হাফেজ ফায়সাল ও মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ হানিফ। আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর দোয়া ও মুনাজাতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

Comments

comments