পুলিশের ভয়ে শিশুসন্তান নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন নিহত পুলিশের স্ত্রী

লিখিত বক্তব্য পড়ছেন খালেদা খাতুন
লিখিত বক্তব্য পড়ছেন খালেদা খাতুন

পাবনার সাঁথিয়া প্রেসক্লাবে বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত পুলিশ সদস্য আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী খালেদা খাতুন। তিনি সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করে বলেন, আমার স্বামী হত্যার প্রায় এক মাস অতিবাহিত হলেও থানা পুলিশ রহস্যজনক কারণে মামলার প্রধান আসামি রেজাউল করিম (পুলিশ পরিদর্শক, সশস্ত্র মিরপুর জোন), পুলিশ সদস্য হৃদয় ও সোহেলসহ অন্যান্য এজাহারভুক্ত আসামিদের গ্রেফতার না করে কালক্ষেপণ করছে। হত্যা মামলার আসামি হয়েও তারা নিজ কর্মস্থলে বহালতবিয়তে রয়েছেন।

তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে প্রশ্ন রেখে বলেন, একজন পুলিশ কর্মকর্তা হয়ে অন্য পুলিশকে কিভাবে হত্যা করতে পারে? অপরদিকে আসামিরা মামলা তুলে নেবার জন্য আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। আমার দুই শিশু সন্তানসহ প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি।

উল্লেখ্য, পাওনা টাকার বিরোধকে কেন্দ্র করে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার গ্রামের বাড়িতে ছুটিতে আসা পুলিশ সদস্য আনোয়ারকে (ক/১২৭৪৩) ধরে নিয়ে বেড়া উপজেলার কাশিনাথপুরে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রটেকশন বিভাগে কর্মরত ছিলেন।

গত ২৬ মার্চ সকালে স্থানীয় এক মেস থেকে আনোয়ারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনায় নিহতের স্ত্রী খালেদা খাতুন বাদী হয়ে উল্লেখিত পুলিশ অফিসার রেজাউল করিম, হৃদয় ও সোহেলসহ ছয় জনের নাম উল্লেখ করে ২৭ মার্চ আমিনপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার নং-২৯।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিহত আনোয়ারের বৃদ্ধ বাবা ওহাব প্রাং, চাচাতো ভাই রেজাউল করিম, আনোয়ারের দুই শিশু সন্তান চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র মিতুল (৮) ও মায়শা (৪)।

সংবাদ সম্মেলনে তার শিশু সন্তান নিয়ে অসহায়ত্ব প্রকাশ করে কান্নায় ভেঙে পড়েন এবং স্বামী হত্যার সুবিচার দাবি করেন।

Comments

comments