ব্যান্ডেজের গায়ে লিখে পুলিশী বর্বরতার অভিনব প্রতিবাদ

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে পুলিশী হামলার অভিনব প্রতিবাদ

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনের সময় আহত হয়ে অভিনব উপায়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। পুলিশ-ছাত্রলীগের যৌথ হামলার সময় পায়ে গুরুতর আঘাত পাওয়ায় আন্দোলনে যোগ দিতে না পেরে ব্যান্ডেজের গায়ে ‘কোটা সংস্কার চাই’ লিখে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের এই ছাত্রী।

গত রোববার দিবাগত রাতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে রাতে হল থেকে বেরিয়ে আন্দোলনকারীদের সাথে যোগ দেয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের ছাত্রীরা। এ সময় শামসুন নাহার হল থেকে রাতে আন্দোলনে যোগ দিতে আসা ওই ছাত্রী টিএসসি-রাজু ভাস্কর্য এলাকায় অবস্থান নেন।

মধ্যরাতে আন্দোলনকারীদের নিজ ক্যাম্পাস থেকে হঠাতে জলকামান, টিয়ারগ্যাস ও রাবার বুলেট নিয়ে অভিযানে নামে পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে মিলিত হয়ে আন্দোলনকারীদের ওপর চড়াও হয় ছাত্রলীগ। হাজারে হাজারে আন্দোলনকারীর সঙ্গে তখন পুলিশ-ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে গেলে ওই ছাত্রী পায়ে আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এই শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের বলেন, ‘৫৬% কোটা, এ যেন বৈষম্য কমাতে যেয়ে নতুন বৈষম্য সৃষ্টি করা হয়েছে। আমি এই বৈষম্যের অবসান চাই। রাতে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালানো হলে আমি পড়ে যেয়ে গুরুতর আহত হই। তারপর থেকে আমি কোথাও চলাফেরা করতে পারছি না। কিন্তু এত বড় একটা যৌক্তিক আন্দোলনের সময় রুমে বসে থাকতে অসহ্য লাগছিল। তখন প্রতিবাদে আমি আমার ব্যান্ডেজের গায়ে লিখে দিয়েছি- কোটা সংস্কার চাই।’

Comments

comments