আন্দোলন অব্যাহত রাখায় ঢাবিতে সাধারণ ছাত্রদের উপর আক্রমনে যাচ্ছে ছাত্রলীগ

আন্দোলন অব্যাহত রাখায় ঢাবিতে সাধারণ ছাত্রদের উপর আক্রমনে যাচ্ছে ছাত্রলীগ। এ মূহুর্তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বিকেলে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের পক্ষে ২০ জন শিক্ষার্থীকে সচিবালয়ে ডেকে পাঠায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এসময় তাদের আন্দোলন থেকে ফিরে এসে তা স্থগিত করার নির্দেশ দেন তিনি। এক মাস সময় বেধে দেন আন্দোলনকারীদের। আর এ সুযোগ নিয়ে বিকেল থেকেই ঢাবি ক্যাম্পাসে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের জড়ো করতে থাকে ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের নেতৃত্বে এসময় সেখানে যোগ দেন ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগরের নেতৃবৃন্দ। এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মিজানুর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি বায়েজিদ আহমেদ খান, ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হোসেনসহ দুই মহানগরের বেশ কয়েকজন নেতা। গোপন এ বৈঠকে অংশ নেয়ার পর থেকেই ছাত্রলীগ ক্যাম্পাসে আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় অস্ত্র এবং লাঠি-সোটা জড়ো করছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে সন্ধ্যার পর থেকেই ক্যাম্পাসে বহিরাগত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের প্রচুর উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। কোটা সংস্কারের বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আগামী ৭ মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করার বৈঠকের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করেছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা সোমবার সন্ধ্যায় বৈঠক শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরে ফিরে প্রতিনিধি দলের নেতা হাসান আল মামুন আন্দোলন স্থগিত রাখার বিষয়ে বৈঠকের সিদ্ধান্তের কথা জনান। এ সময় উপস্থিত শত শত শিক্ষার্থী ‘মানি না, মানবো না’- বলে স্লোগান দিতে থাকেন। ঠিক এসময়েই ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি বেড়ে যায়। এবং আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর আক্রমণের প্রস্ততি নেয়।

এরই মধ্যে ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করতে এলে তাদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় পুলিশকেও টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছুড়তে দেখা গেছে। দুই পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাউকে এখনও পর্যন্ত এ অবস্থা প্রশমনে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি।

Comments

comments