ভারত থেকে কাভার্ড ভ্যান ভরে পাঠানো হচ্ছে বিস্ফোরক!

অনেকটা নিয়ম করেই ভারত থেকে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশে পাঠানো হচ্ছে ভয়ানক সব বিস্ফোরক দ্রব্য। তাও ২-১ কেজি করে নয়। ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান ভরে ভরে পাঠানো হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের বিস্ফোরক দ্রব্য। এরই অংশ হিসেবে ভারত থেকে পাচার হয়ে আসা একটি কাভার্ডভ্যান ভর্তি বিস্ফোরক ও আতশবাজি আটক করেছে কাস্টমস কর্মকর্তারা। বেনাপোল কাস্টমস হাউসের বাশকল এলাকা থেকে শুক্রবার সন্ধ্যায় আতশবাজিসহ ২ জনকে আটক করা হয়। সীমান্তবর্তী তেরঘর এলাকা থেকে এসব বিস্ফোরক আতশবাজি ঢাকায় আনা হচ্ছিল।

কাস্টমস জানায়, ভারত থেকে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক পাচার হয়ে বাংলাদেশে আসছে এমন গোপন খবরের ভিত্তিতে কাস্টমস আইআরএম এর একটি দল কাস্টমস হাউসের সামনে অভিযান চালায়। এসময় একটি কাভার্ড ভ্যান আটক করা হয়। পরে কাভার্ড ভ্যানে তল্লাশি চালিয়ে ৩০ কার্টুন আতশবাজি জব্দ করা হয়। কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে থাকা ২ জনকে আটক করা হয়।

আটক সেলিম ঢাকার পল্লবীর সিরাজুল ইসলামের ছেলে এবং আসাদুজ্জামান বেনাপোলের পুটখালি গ্রামের সামাউল মোড়লের ছেলে। আটকৃত বিস্ফোরক আতশবাজির বাজার মূল্য ২৬ লাখ টাকা।

চোরাচালানকারী সামছুল আলম এসব আতশবাঁজি ঢাকায় নিচ্ছিলেন বলে আটক দুইজন জানিয়েছেন।

কাভার্ডভ্যানের ড্রাইভার সেলিম ও এসকর্ট মো. আসাদুজ্জামান (চঞ্চল) জানান, ঢাকাস্থ প্রতিষ্ঠান ‘রুপকার’ এর ম্যানেজার সামছুল আলম কাভার্ডভ্যান ভাডা করে এসব মালামাল ঢাকায় নিচ্ছিলেন।

এ বিষয়ে বেনাপোল কাস্টমস হাউসের ডেপুটি কমিশনার সাইদ আহমেদ রুবেল জানান, কি কারণে দেশের অভ্যন্তরে এত বিপুল পরিমান আতশবাজি পাচার করে দেশে আনা হচ্ছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। একটি প্রভাবশালী মহল এই বিস্ফোরকের চালান দেশে আনছিলেন বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, এসব আতশবাজি থেকে বিস্ফোরক দ্রব্য বের করে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে ব্যবহারের ঘটনা প্রায়ই ঘটছে।

Comments

comments