চবিতে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ: হল থেকে উদ্ধার দুই বস্তা দেশীয় অস্ত্র, আটক ১৫

সংঘর্ষে জড়িতদের আটক করে নেওয়া হচ্ছে

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে ফের সংঘর্ষের পর দুই হলে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ।

বুধবার রাত ৮ টা থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহজালাল ও সোহরাওয়ার্দী হলে চালানো এ তল্লাশিতে দুই বস্তা দেশীয় অস্ত্র ও পাঁচটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। আটক করে থানায় নেওয়া হয়েছে ১৫জনকে।

কথা কাটাকাটির জেরে দুইদিন ধরেই সংঘর্ষে জড়িযেছে ট্রেনের বগি ভিত্তিক দুই গ্রুপ ভি এক্স এবং সিক্সটি নাইন।

সর্বশেষ বুধবার বিকেলে সংঘর্ষের ঘটনায় ছয়জনকে আটক করা হয়। এরপরই তল্লাশি শুরু হয়। রাত ১০টার দিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অভিযান চলছিল।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) সাংবাদিকদের বলেন, ‘হলে অস্ত্র মজুদ রয়েছে বলে তথ্য ছিল আমাদের কাছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহায়তায় দুইটি হলে তল্লাশি চালাই। এসময় আমরা বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করি এবং ১৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসি। বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় অভিযানে পাঁচটি মোটরসাইকেলও জব্দ করা হয়েছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী বলেন, ‘গত দুই দিন ধরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষ কয়েকবার নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ যাতে অস্থিতিশীল না হয় সেজন্য হলে তল্লাশি চালানো হয়েছে।’

গত মঙ্গলবার কথা কাটাকাটির জেরে নিজেদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়ায় ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক দুই গ্রুপ ভি এক্স এবং সিক্সটি নাইন। দুই গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন মিজানুর রহমান বিপুল ও মনসুর আলম।

সংঘর্ষের সময় দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের ধারালো অস্ত্রের মহড়া দিতে দেখা যায় । গ্রুপ দুটিই সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী।

Comments

comments