রাবিতে ভাড়া পরিশোধ করেও দখল পাচ্ছেন না বরাদ্দপ্রাপ্তরা

  • ক্ষমতাসীনদের দখলে হলের ৫৭৫টি সিট

মর্তুজা নুর, রাবি

আবদুল্লাহ আল নোমান। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) হিসাববিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। দেড় বছর ধরে জোহা হলের ১১৬ নাম্বার কক্ষে সিটের ভাড়া দিচ্ছেন। হল প্রশাসন সিটের ভাড়া নিলেও নোমানকে কোনো সিট দিতে পারেনি। এ ঘটনা শুধু নোমানের নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থীই হলে সিট ভাড়া দিয়েও সিটে উঠতে পারছেন না। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ৫৭৫টি সিট ক্ষমতাসীনদের দখলে।

সিট ভাড়ার টাকা দিয়েও হলে উঠতে না পারা শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, হল প্রশাসনের কাছে সিটের বিষয়ে কথা বলতে গেলে তারা নিজেরাই অসহায়ত্ব প্রকাশ করছেন। কার্যত কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। ফলে মাসের পর মাস সিটের ভাড়া দিয়েও সিটে উঠতে পারছেন না তারা। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৯ মার্চ পর্যন্ত হলগুলোয় অনুসন্ধান করে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছেলেদের ১১টি আবাসিক হলে মোট ৫৭৫টি সিট অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের দখলে রয়েছে। শিক্ষার্থী সিট ভাড়া দিয়েও হলে উঠতে পারেননি। এর মধ্যে সর্বাধিকসংখ্যক নবাব আবদুল লতিফ হলে ৯৫টি সিট অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের দখলে। এ ছাড়া শাহ মখদুম হলে ৪৫, আমির আলী হলে ৪৩, শেরেবাংলা হলে ৬৫, বঙ্গবন্ধু হলে ৭০, মাদার বখশ হলে ৪৩, জোহা হলে ৫৪, সোহরাওয়ার্দী হলে ৬১, জিয়া হলে ৩৮, হবিবর রহমান হলে ৪১ ও মতিহার হলে ২০টি সিট অবৈধ দখলে আছে। এসব সিটে যারা থাকছেন তারা হল প্রশাসন থেকে বরাদ্দ না পেয়েই উঠেছেন। ফলে এসব সিট যেসব শিক্ষার্থী বরাদ্দ পেয়েছেন তারা ভাড়া দিলেও হলে উঠতে পারছেন না। আর এসব দখল সিটের ৫০৩টি দখল করে আছেন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

Comments

comments