নিজেদের সামর্থ্য জানান দিতেই একটু বেশি সুদে ঋণ নেয়া: আবুল মাল

জাতি হিসেবে নিজেদের সামর্থ্য জানান দিতেই স্বল্প সুদের পাশাপাশি একটু বেশি সুদে ঋণ নেয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ। বুধবার সচিবালয়ে ‘স্বল্পোন্নত দেশ হতে বাংলাদেশের উত্তরণ’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের সামনে চ্যালেঞ্জগুলো নিয়ে এসব কথা বলেন আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন তার চেয়ে গরিব দেশের কথা চিন্তা করে স্বল্প সুদের চেষ্টা কম করে। কেননা একসময় কিভাবে দান-খয়রাত পাওয়া যাবে তা নিয়ে বাংলাদেশকে ব্যস্ত থাকতে হতো। “সারা দুনিয়ায় আমাদের বদনাম ছিল, আমরা গরিব। সে অবস্থা আর এখন…. আসমান আর পাতাল।. .. আমরা সাহায্যের জন্য হাত পাতি- সে কথা আমাদের শুনতে হয়েছে। আজ আমি খুব গৌরব বোধ করছি।”

বাংলাদেশ কেবল আবেদন করার যোগ্য হয়েছে, এখনও অনেক পথ বাকি; তারপরও উদযাপনের এত আয়োজন কেন? এমন প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, “কেন নয়? আমরা অনেক নিচে ছিলাম; আমরা উপরে উঠছি এখন, আরও উপরে যাব। আমরা দেখিয়েছি আমরাও পারি। আমরা উৎসবপ্রিয় জাতি। তাই সবাইকে নিয়ে উদযাপন করব।”

সামনের চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরে তিনি বলেন, “২০২৪ সাল পর্যন্ত আমরা এলডিসি থাকব। ২০১৮-২০২৪ সাল পর্যন্ত একটা ট্রানজিশনে থাকব। আমাদের মানসিকতাও পরিবর্তন করতে হবে। বেশি হারে আন্তর্জাতিক ঋণ নেওয়ার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে।”

তিনি বলেন, “মানসিকতার পরিবর্তনে ইতোমধ্যে আমরা পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছি। কোন খাতে কত ঋণ নেব, সে বিষয়ে সাবধান হতে হবে।”

Comments

comments