বেগম জিয়ার মুক্তি ছাড়া নির্বাচনে যাবে না বিএনপি

দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আগে নির্বাচনের কোনো চিন্তা নেই বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এছাড়া একদলীয় শাসন টিকিয়ে রাখতেই বেগম খালেদা জিয়াকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা।

তারা বলেছেন, জনগণের উত্তাল প্রতিবাদে বিদায় নিতে হবে সরকারকে।

শনিবার সকালে বেগম জিয়ার মুক্তি দাবিতে পূর্বঘোষিত গণস্বাক্ষর কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান এসব কথা জানান নেতারা। তারা আরো বলেন, বেগম জিয়াকে ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।

বেগম জিয়ার মুক্তি দাবিতে নতুন করে ৩দিনের ঘোষিত কর্মসূচির প্রথম দিনে গণস্বাক্ষর কর্মসূচিতে অংশ নিতে শনিবার সকালেই নয়াপল্টনে বিএনপি’ র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমবেত হন দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দলের অন্যান্য শীর্ষনেতাদের সঙ্গে নিয়ে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্যে বেগম জিয়াকে ছাড়া কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলে মন্তব্য করেন বিএনপি নেতারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না। তার মুক্তির আগে আমরা নির্বাচনের কোনো চিন্তা করছি না। আমরা দেশ নেত্রীকে মুক্ত করে আগামীর রাজনীতিতে অগ্রসর হবো।’

এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার শান্তিপূর্ণ উপায়ে আদায় করবো।’

কোনো ধরনের উস্কানিতে প্রভাবিত না হয়ে ধৈর্যসহ শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যেতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তারা ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না কখনও। জনগণের উত্তাল সোচ্চার প্রতিরোধের মুখে এই সরকারকে অবশ্যই বিদায় নিতে হবে।’

তিনি দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য বলেন, ‘শান্তভাবে ধৈর্য ধরে সব পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে। কখনও ধৈর্যহারা হবেন না। বিশৃঙ্খলা করবেন না।’

বেগম জিয়া কারামুক্ত না হওয়া পর্যন্ত দেশব্যাপী এ গণস্বাক্ষর কর্মসূচি চলবে বলেও জানায় বিএনপি।

Comments

comments