জাবিতে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে র‌্যাগিংয়ের শিকার শিক্ষার্থী

ইনসেটে র‌্যাগিংয়ের শিকার জাবি শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান

র‌্যাগিংয়ের শিকার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ঘটনার পর থেকে তিনি আত্মীয়স্বজন কাউকেই চিনতে পারছেন না। তাঁকে একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞের অধীনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

র‌্যাগিংয়ের শিকার ওই শিক্ষার্থীর নাম মিজানুর রহমান। তাঁর বাড়ি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার কায়করিয়াকান্দা গ্রামে। তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিজানুরের সহপাঠীরা বলেন, গত বুধবার দুপুরে ওই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থী (৪৬তম ব্যাচ) প্রথম বর্ষের (৪৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার জন্য কথা বলেন। এ সময় দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা মিজানুর রহমানসহ শহীদ সালাম বরকত হলে আসন বরাদ্দ পাওয়া শিক্ষার্থীদের ওই হল ছেড়ে আ ফ ম কামালউদ্দিন হলে উঠতে ভয়ভীতি দেখান ও চাপ দেন। পরদিন দুপুরে মিজানুরকে আবারও ভয় দেখান তাঁরা। এরপর ওই রাত থেকে অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করেন মিজানুর।

শিক্ষার্থীরা জানান, কামালউদ্দিন হলে গেলে ‘বড় ভাই’দের নির্দেশ মেনে চলতে হবে এবং যখন যা বলে, শুনতে হবে।

হলের জ্যেষ্ঠ শিক্ষার্থীরা মিজানুরকে দেখতে গেলে তিনি ‘তুই আমার জীবন শেষ করেছিস, তোরা আমাকে মেরে ফেলবি’—এসব বলতে থাকেন। খবর পেয়ে শুক্রবার রাতে তাঁর বাবা ও চাচা ক্যাম্পাসে আসেন। কিন্তু মিজানুর তাঁদের কাউকে চিনতে পারেননি।

মিজানুরের বাবা আজিজুল হক বলেন, ‘আমার ছেলের অবস্থা ভালো নয়। সে এখনো অস্বাভাবিক আচরণ করছে। দিনের অধিকাংশ সময় সে ঘুমাচ্ছে।’

Comments

comments