এবারও এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেসবুকের মাধ্যমে এবারও প্রশাসনের কড়া বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো প্রমাণ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষা সঙ্গে সঙ্গে বাতিল করা হবে। তবে শিক্ষামন্ত্রীর এ নির্দেশনার বিপক্ষে যু্ক্তি দেখিয়ে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা বলছেন, পরীক্ষা বাতিল কোনো সমাধান নয় বরং প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিলেই এটা রোধ করা সম্ভব। গত কয়েক বছরে পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাসেঁর বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মহলে যথেষ্ট আলোচনা- সমালোচনা হয় । যা নিয়ে অভিভাবক থেকে শুরু করে অসন্তুষ্টি দেখা দেয় খোদ শিক্ষার্থীদের মধ্যেও। প্রতিবারের মতোই প্রশ্ন ফাঁস রোধে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এবারও আসে কিছু নির্দেশনা।

যার মধ্যে কোচিং সেন্টার বন্ধ সহ বেধে দেওয়া হয় আরো কিছু বিধি- নিষেধ। আর নির্দেশনা অনুযায়ী পরীক্ষা কেন্দ্রে নির্দিষ্ট সময়ের ৩০ মিনিট আগে এসে হাজির হন পরীক্ষার্থীরা সাথে ছিলেন অভিভাবকরাও ।

তবে পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ আগেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি মহলের মধ্য দিয়ে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষার বহুনির্বাচনী প্রশ্ন ছড়িয়ে পড়ে। যা পরীক্ষার প্রশ্নের সাথে হুবহু মিল পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে ছদ্মবেশে সময় সংবাদের নিউজ টিম প্রশ্ন কেনার কথা বললে আরিফুর হোসেন এই প্রতিবেদকের কাছে ২০০০ টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দিতে রাজি হন।

এদিকে পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হলে পরীক্ষা বাতিল করা হবে শিক্ষামন্ত্রীর এমন নির্দেশনা মানতে নারাজ পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা তাদের দাবি অপরাধীদের শনাক্ত করে এ প্রক্রিয়া রোধ করা প্রশাসনেরই দায়িত্ব।

এবছর সারাদেশে মোট ১০টি বোর্ডের অধীনে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ২০ লাখ ৩১ হাজার ৮৯৯ জন শিক্ষার্থী।

Comments

comments