অনন্য মুমিনুল, দুর্দান্ত মুমিনুল

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনে কোন ছবিটা চোখে বেশি ভাসছে? মুমিনুল হকের সেঞ্চুরি উদ্‌যাপনটাই হওয়ার কথা। তা, সেঞ্চুরির পর ব্যাটসম্যানরা উদ্‌যাপন তো করবেনই। কিন্তু আজ মুমিনুলের উদ্‌যাপনে লুকিয়ে অনেক অনুচ্চারিত কথা। তা ধরতে পেরেই হয়তো কোচ ও ক্রীড়ালেখক জালাল আহমেদ চৌধুরী ফেসবুকে লিখেছেন, ‘একটি শতকের শরীরে সহস্র অভিমানের উপশম লিখা।’

অভিমান? অভিমানই তো! চন্ডিকা হাথুরুসিংহে তাঁকে নিয়ে যে ‘খেলা’টা খেলেছেন গত তিনটি বছর, প্রথমে ওয়ানডে থেকে ‘বাতিলের খাতায়’ ফেলে দিলেন। পরে হুমকির মধ্যে পড়ে গেল মুমিনুলের টেস্ট ক্যারিয়ারও। ২০১৪ সালে বাংলাদেশ দলের কোচ হওয়ার কয়েক মাস পরই ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে হাথুরু ঘোষণা দিলেন, মুমিনুল শর্ট বলে দুর্বল! গত মার্চে শ্রীলঙ্কা সফরে গল টেস্টে টানা দুই ইনিংসে দিলরুয়ান পেরেরার বলে এলবিডব্লু হওয়ার পর হাথুরু আবিষ্কার করলেন, মুমিনুল অফ স্পিন খেলতে পারছেন না! কলম্বোয় বাংলাদেশের শততম টেস্টে একাদশ থেকেই তো বাদ দিয়ে দিলেন শ্রীলঙ্কান এ কোচ।

গত আগস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টের আগে মুমিনুলকে স্কোয়াডে না রেখে ফের বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন হাথুরু। পরে যদিও কড়া প্রতিক্রিয়ায় কারণে বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে দলে নিতে বাধ্য হয়েছিলেন। তবে ঢাকা টেস্টে মুমিনুল কিন্তু উপেক্ষিতই ছিলেন। এসব ব্যথা উপশমে মুমিনুলের সামনে একটি পথই খোলা ছিল, রান করতে হবে, শুধু রান।
তীব্র সেই রানক্ষুধাটা মুমিনুল মেটালেন আজ হাথুরুর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই। প্রতিপক্ষের বোলারদের জন্য ভীতিজাগানিয়া স্ট্রাইকরেটে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করেছেন। সেঞ্চুরি করেই বাঁধনহারা উদ্‌যাপন। মুমিনুলের চরিত্রের সঙ্গে যেটি একদম মেলানো যায় না।

উদ্‌যাপনের মর্মার্থ মুমিনুলের মুখ থেকে শুনলেই সবচেয়ে ভালো হতো। কিন্তু অপরাজিত থাকায় আজ আর তিনি সংবাদ সম্মেলনে আসেননি। দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হলেন তামিম ইকবাল। কতটা অবাক মুমিনুলের খ্যাপাটে উদ্‌যাপনে, সেটি অবশ্য বলতে গিয়েও বললেন না বাঁহাতি ওপেনার। তামিম শুধু বললেন, ‘মুমিনুলের কিছু প্রমাণের ছিল। সেটা সে করতে পেরেছে। ড্রেসিংরুমে ওর সঙ্গে এ নিয়ে কথা হয়নি। আমারও এটা দেখে ভালো লেগেছে। বুঝতে পেরেছি কেন সে করেছে।’
বাংলাদেশ দলে কিছুদিন ব্যাটিং কোচ হিসেবে কাজ করেছেন থিলান সামারাবীরা। মুমিনুলকে কাছ থেকেই দেখেছেন তিনি। সাবেক শিষ্যের উদ্‌যাপন কেমন লেগেছে? শ্রীলঙ্কার বর্তমান ব্যাটিং কোচ অবশ্য অট্টহাসিতে এড়িয়ে যেতে চাইলেন বিষয়টি, ‘এটা তার ব্যাপার। সে খুব শান্ত খেলোয়াড়।’ উদ্‌যাপন নিয়ে না বললেও সামারাবীরা বললেন মুমিনুলের ব্যাটিং নিয়ে, ‘আজ অনেক আক্রমণাত্মক ছিল সে। আমি যখন বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ ছিলাম, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সে কঠিন পিচে খেলেছে। আজকের উইকেটটা অনেক বেশি ফ্ল্যাট ছিল। সে তার পা ও উইকেটকে ব্যবহার করেছে।’

১৭৫ রানে অপরাজিত মুমিনুল ইনিংসটা আরও দীর্ঘ করার লক্ষ্যেই কাল সকালে ব্যাটিংয়ে নামবেন। জালাল আহমেদের কথা হচ্ছিল শুরুতে, ফেসবুকে তাঁর স্ট্যাটাস দিয়েই শেষ হোক, ‘শাবাশ মুমিনুল হক। চাক্কা চলুক।’

Comments

comments