মাত্র ৬ হাজার টাকার জন্য শিশুকে হত্যা

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অপহরণের ৩দিন পর আফসানা (১০) নামে এক স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আফসানা সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল স্কুলের ৩য় শ্রেণির ছাত্রী। সে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল আরামবাগ এলাকার বাসিন্দা আশরাফুল ইসলামের মেয়ে।

শুক্রবার হাত পা বাধা অবস্থায় বস্তাবন্দী অবস্থায় লাশ সোনারগাঁ উপজেলার কাইকারটেক এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

এর আগে বুধবার দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করেন আফসানার পিতা মোঃ আশরাফুল ইসলাম। সেখানে গত ২৩ জানুয়ারি সকালে বাসা থেকে স্কুলের উদ্দেশ্যে বের হয়ে আফসানা আর বাসায় ফিরেনি বলে উল্লেখ করেন তিনি।
দুদিন পর শুক্রবার সকালে লাশ পেয়ে পুলিশ অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধার করে সদর জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করে। পরে বিকেলে মেয়ের লাশ সনাক্ত করেন আশরাফুল ইসলাম।

এদিকে ২৪ তারিখ রাতেই আশরাফুল ইসলামের কাছে ফোন করে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি জানান, তার মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছে। তার কাছে ৬ হাজার টাকা মুক্তিপণ ও মিষ্টি খাওয়ার জন্য দাবি করেন উক্ত ব্যক্তি।

আশরাফুল ইসলাম জানান, নিতাইগঞ্জে এসে তারা টাকা দিয়ে যেতে বলেছিল। আমরা জানাই আমাদের মেয়েকে নিয়ে আসেন টাকা দিবো। একথা বলার পরই তারা জানায় তাহলে মেয়ের লাশ পাবেন।

তিনি আরো জানান, আমাদের সাথে কারো কোন পারিবারিক দ্বন্দ্ব নেই। কারো সাথে কোন অর্থনৈতিক খারাপ সম্পর্কও নেই। কাউকে সন্দেহও করছিনা।

হাসপাতালে লাশ সনাক্ত করতে এসে আফসানার মা রুবিনা বেগম বার বার কান্নায় মূর্ছা যেতে যেতে বলেন, বাচ্চা মেয়েকে নিয়ে কেন তারা মেরে ফেললো। ৬ হাজার টাকার জন্যতো আর কেউ কাউকে মেরে ফেলেনা। ওরা আমার মানিককে মেরে ফেলার জন্যই নিয়ে গেছে। আমি এই হত্যার বিচার চাই।

সোনারগাঁ থানার ওসি (অপারেশন) আব্দুর জব্বার জানান, উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের কাইকারটেক ব্রিজের পূর্বপাশে সকালে এলাকাবাসী অজ্ঞাতনামা বস্তাবন্দী, হাত-পা বাধা ও মুখে কচটেপ লাগানো এক কিশোরীর লাশ দেখতে পায়। বিষয়টি সোনারগাঁ থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

Comments

comments