পুলিশ কনস্টেবলকে মারধর: ঢাকা মেডিকেল থেকে ৫৯ আনসার প্রত্যাহার

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৫৯ জন সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আজ বুধবার বিকেলে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) এক পুলিশ কনস্টেবলকে মারধর ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হওয়ায় ওই পালায় দায়িত্বরত সদস্যদের প্রত্যাহার করা হলো। একই সঙ্গে ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করেছে ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ। সন্ধ্যার পর পুলিশ ও আনসার কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত। এটি বড় আকার ধারণ করছিল। সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে আমি ছুটে আসি। সন্ধ্যার পর পুলিশ ও আনসার কর্মকর্তাসহ আমরা জরুরি বৈঠকে বসি। সবার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঘটনা তদন্তের জন্য পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটি সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে। ওই প্রতিবেদনের পর দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক (অর্থ) বিদ্যুৎ কান্তি পাল। অন্য সদস্যরা হলেন আনসারের ঢাকা রেঞ্জের উপপরিচালক কামরুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা জোনের এডিসি এইচ এম আজিমুল হক ও একই জোনের এসি (প্রশাসন) মো. ইকবাল হোসেন এবং আনসারের ঢাকা জেলার সহকারী কমান্ড্যান্ট তানিয়া সুলতানা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রুবেল নামের এক পুলিশ সদস্য অ্যাপেনডিসাইটিসের সমস্যা নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২১৯ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি হন। আজ বুধবার তাঁর অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়। এরপর তাঁকে আইসিইউর পাশে পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে রাখা হয়। তাঁর সেবার দায়িত্বে ছিলেন রাজধানীর মিরপুর পুলিশ লাইনে কর্মরত কনস্টেবল মাহবুবুল আলম (২২)।

এ ব্যাপারে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত উপপরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া বলেন, বিকেলে রুবেলকে দেখার জন্য আইসিইউর গেট দিয়ে ঢুকতে চাইলে দায়িত্বরত আনসার সদস্য সাইফুল ইসলাম (২৪) কনস্টেবল মাহবুবকে বাধা দেন। পুলিশ পরিচয় দেওয়ার পরও ভেতরে ঢুকতে হলে ৫০ টাকা দাবি করেন সাইফুল। তখন তাঁদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এর কিছুক্ষণ পর চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী কিছু ওষুধপত্র কিনে এনে আবার ঢুকতে চাইলে আনসার সদস্য মাহবুবের ওপর চড়াও হন। একপর্যায়ে চার থেকে পাঁচজন আনসার সদস্য মিলে তাঁকে মারধর করে বলে অভিযোগ করেছেন কনস্টেবল মাহবুব। পরে আহত পুলিশ কনস্টেবল মাহবুবুল আলম ও আনসার সদস্য সাইফুল ইসলামকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

Comments

comments