ছাত্রলীগ কর্তৃক ছাত্রী নিপীড়নের বিচারের দাবিতে ঢাবি প্রক্টর অবরুদ্ধ

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে সোমবার বিকেলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। এ সময় চারদিকে ঘিরে রেখে তাঁদের উত্ত্যক্ত করেন ছাত্রলীগের কিছু নেতা–কর্মী। ছবি : সংগৃহীত

ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের নিপীড়নের বিচারের দাবিতে বুধবার দুপুর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কার্যালয় ঘেরাও করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা। এর আগে সকালে সাত কলেজের অধিভূক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের নিপীড়নের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। তার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কার্যালয় ঘেরাও করে আন্দোলনকারীরা।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ‘নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দ’ ব্যানারে মানববন্ধনের আয়োজন শেষে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

একই দাবিতে ছাত্র ইউনিয়ন একটি মিছিল বের করে। মিছিল শেষে তারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যোগ দিয়ে প্রক্টর কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। তাদের দেখে প্রক্টর কার্যালয়ের কলাপসিবল গেইট বন্ধ করে দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীরা গেইট ভেঙে প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানীকে তার কার্যালয়ের সামনে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

এ সময় তারা তিনটি দাবি উত্থাপন করেন। দাবিগুলো হলো- বঙ্গবন্ধু হলের সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন রহমানের বহিষ্কার, ছাত্রী নিপীড়নের বিচার ও আন্দোলনের সমন্বয়ক মশিউরকে কেনো পুলিশে দেওয়া হলো এর কারণ স্পষ্ট করতে হবে।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের কাছে আধাঘণ্টা সময় চেয়ে জানান, এ বিষয়ে তিনি উপার্চাযের সঙ্গে কথা বলবেন। তবে এখনো আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা সেখানে অবস্থান করায় ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

Comments

comments