তীব্র শীতে বিপর্যস্তদের সহায়তায় সরকার ও বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে -শিবির সেক্রেটারি জেনারেল

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেছেন, শীতের তীব্রতায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। গরিব অসহায় মানুষের অবস্থা শোচনীয় হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় তীব্র শীতে বিপর্যস্তদের সহায়তায় সরকার ও বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি আজ রাজধানীতে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর শাখার উদ্যোগে গরীব ও এতিম শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মহানগরী সভাপতি জামিল মাহমুদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি আজিজুল ইসলাম সজিবের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় এইচআরডি সম্পাদক জামশেদ আলম, আন্তর্জাতিক সম্পাদক আতিকুর রহমানসহ মহানগরী নেতৃবৃন্দ।

শিবির সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, দেশের ৫০ বৎসরের ইতিহাসের সর্বনিন্ম তাপমাত্রা বিরাজ করছে। তীব্র শীত ও শৈত্যপ্রবাহে জনজীবন স্থবির হয়ে পড়ছে। বিপাকে পড়েছেন কর্মজীবী মানুষ। শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে শীতের প্রকোপে অনেক মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। শীত এখন বিপর্যয়ে রুপ নিয়েছে। বিশেষ করে অসহায় দরিদ্র মানুষের জন্য শীত সিমাহীন দূর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কষ্টে দিন যাপন করছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা গরীব ও এতিম শিশুরা। এসব মানুষগুলোকে সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের সহায়তার দিকে চেয়ে আছে। এ পরিস্থিতিতে শীতার্ত মানুষদেরকে অগ্রাহ্য করার কোন সুযোগ নেই। এই বিপর্যয় রোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নিলে শীতের দুর্ভোগে মৃত্যুর হারও বাড়বে।

তিনি বলেন,শীতে বিপর্যস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো সকল মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। শীতার্ত মানুষের কষ্ট লাঘবে প্রয়োজন সরকারি ও বেসরকারিভাবে কার্যকরী উদ্যোগ। সারাদেশের শীতার্ত মানুষের কাছে গরম কাপড়, কম্বলসহ ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে সরকারের পাশাপাশি দেশের ধনী ও বিত্তবান মানুষদের এগিয়ে আসতে হবে। অতীতে যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় ছাত্রশিবির এগিয়ে এসেছে। এ বৎসরও শীতার্তদের সহায়তায় মাসব্যাপী কর্মসূচি পালন হচ্ছে। শীতার্তদের কষ্ট লাঘবে প্রত্যেক জনশক্তিকে একটি করে শীতবস্ত্র বিতরণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। চলমান তীব্র শীত থেকে শীতার্ত মানুষকে শীত থেকে বাঁচাতে সরকার, সামর্থবান, বিত্তশালীসহ বিভিন্ন সংগঠনকে এগিয়ে আসার জন্য আমরা আহবান জানাচ্ছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Comments

comments