এসআই স্বামীর নির্যাতনে হাসপাতালে স্ত্রী

মাদক সেবনে বাধা দেওয়ায় পুলিশের এক উপপরিদর্শক (এসআই) তাঁর স্ত্রীকে নির্যাতন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বদরুদ্দোজা মাহমুদ নামের ওই এসআইয়ের স্ত্রীকে আজ বুধবার সাভার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এসআই বদরুদ্দোজা ২০১৭ সালের ১৬ মার্চ ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) যোগদান করেন। নানা অভিযোগের কারণে পাঁচ মাস আগে ডিবি থেকে প্রত্যাহার করে তাঁকে ঢাকা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত (ক্লোজড) করা হয়। সেখান থেকে ২০১৭ সালের ২৬ ডিসেম্বর তাঁকে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশে বদলি করা হয়।

ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) শাহ্ মিজান শাফিউর রহমান জানান, নানা অভিযোগের কারণে কয়েক মাস আগে বদরুদ্দোজাকে আটক করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর স্ত্রী লিখিত অভিযোগ না করায় কোনো ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

বদরুদ্দোজার স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা বলেন, বদরুদ্দোজা আগে কনস্টেবল পদে চাকরি করতেন। কনস্টেবল থাকা অবস্থায় ২০১৩ সালে বদরুদ্দোজার সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। ২০১৪ সালে বদরুদ্দোজা কনস্টেবলের চাকরি ছেড়ে সরাসরি এসআই পদে যোগদান করেন। ওই চাকরির জন্য রাজিয়ার পরিবার বদরুদ্দোজাকে ২০ লাখ টাকা দেয়। প্রশিক্ষণ শেষে বছর দেড়েক আগে তিনি রূপগঞ্জ থানায় যোগদান করেন। এর আগেই বদরুদ্দোজা মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। এর প্রতিবাদ করলেই তিনি রাজিয়াকে মারধর করতেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর রূপগঞ্জ থেকে বদরুদ্দোজাকে ঢাকা জেলায় বদলি করা হয়। পোস্টিং হয় ঢাকা জেলা উত্তরের (সাভার) ডিবিতে। বাসা নেন সাভার পৌর এলাকার তালবাগে।

রাজিয়া বলেন, তাঁর স্বামী নিয়মিত ইয়াবা বড়িসহ নানা ধরনের মাদক সেবন করেন। তাঁর কয়েকজন সহযোগী রয়েছে। এই সহযোগীদের মাধ্যমে বদরুদ্দোজা মাদকের ব্যবসাও করেন। নির্বিঘ্নে এসব কাজ করার জন্য বদরুদ্দোজা সাভারে আলাদা একটি ফ্ল্যাটও ভাড়া নিয়েছেন। এসব কাজে বাধা দিলেই রাজিয়াকে নির্যাতন করতেন তিনি। এর ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার দুপুরে বদরুদ্দোজা তাঁকে পিটিয়ে ও বুট দিয়ে লাথি মেরে গুরুতর আহত করেন। পরে ফ্ল্যাটে রাজিয়াকে আটকে রেখে তিনি চলে যান। রাতে বদরুদ্দোজা বাসায় ফেরেন। এরপর আজ বুধবার সকালে রাজিয়া কৌশলে বাসা থেকে বের হয়ে সাভার মডেল থানায় যান। পরে পুলিশের সহায়তায় তিনি সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। তাঁদের কোনো সন্তান নেই।

সাভার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আরমান আহমেদ বলেন, রাজিয়ার মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আঘাতের কারণে তাঁর মাথা ফেটে গেছে। এ ছাড়া ডান হাত ও চোখের নিচে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় চিকিৎসার জন্য তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে এসআই বদরুদ্দোজার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও ফোন না ধরায় তাঁর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

ডিবি উত্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম সায়েদ বলেন, ‘বদরুদ্দোজা মাদক সেবন বা ব্যবসা করেন কি না, তা আমার জানা নেই। তবে তাঁর স্ত্রীর অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগের কারণে মাস পাঁচেক আগে তাঁকে ডিবি থেকে প্রত্যাহার করা হয়।’

সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সওগাতুল আলম বলেন, ‘এসআই বদরুদ্দোজার স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানতে পেরেছি। তবে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত তিনি (রাজিয়া) লিখিত কোনো অভিযোগ করেননি।’

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান বলেন, এসআই বদরুদ্দোজা বর্তমানে ঢাকা জেলায় কর্মরত নেই। এ কারণে ঢাকা জেলা পুলিশের পক্ষে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব নয়। তবে তাঁর স্ত্রীর ওপর শারীরিক নির্যাতনের বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Comments

comments