নিখোঁজ আতঙ্কে দিন কাটে উইঘুর মুসলিমদের

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের হাজার হাজার উইঘুর মুসলিমকে সরকারি রাজনৈতিক আশ্রয়কেন্দ্রে আটকে রাখা হচ্ছে। সংখ্যালঘু এ জনগোষ্ঠী সন্ত্রাসবাদে জড়িয়ে পড়ছে বলে অভিযোগ করে তাদেরকে আটকে রাখার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

সংখ্যালঘু প্রান্তিক এ সম্প্রদায়ের লোকজন কয়েক বছরে ব্যাপকহারে নিখোঁজ হয়েছেন। চীন সরকার অভিযোগ করছে, সন্ত্রাসবাদে জড়িয়ে পড়ছেন উইঘুর মুসলিমরা। তবে উইঘুররা জানিয়েছে, সরকারি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে।

তুর্কি ভাষাভাষী এক কোটি উইঘুরের জিনজিয়াং প্রদেশ এখন কার্যত পুলিশি রাজ্যে পরিণত হয়েছে। প্রতিণেই সেখানে টহল পুলিশ, সাঁজোয়া যান ও ২৪ ঘণ্টার নজরদারি সামগ্রী ব্যবহার করে তাদের সব কিছুই পর্যবেণ করা হচ্ছে।

২০১৩-১৪ সালে কয়েক দফা সহিংস ঘটনার জেরে উইঘুরদের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান শুরু করে দেশটির সরকার। স্থানীয় কর্তৃপ বলছে, সন্ত্রাসবাদের মূলোৎপাটনের ল্েযই এ কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে সেখানে।

রমজান মাসে রোজা রাখা নিষিদ্ধ করেছে দেশটির মতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি। এ ছাড়া জিনজিয়াংয়ের মসজিদগুলোতে আজান, লম্বা দাড়ি রাখা, ইসলামি স্কার্ফ পরা ও তুর্কি ভাষা ব্যবহারেও সরকারি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ও রেডিও অনুষ্ঠান না শুনলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হয় উইঘুর মুসলিমদের। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে উইঘুরদের তথ্য-উপাত্ত, ত্রিমাত্রিক পোর্টেইট, কণ্ঠ শনাক্ত, ডিএনএ ও আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করছে সরকার। এ ছাড়া অত্যাধুনিক নজরদারি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে জিনজিয়াংয়ে।

-এপি

Comments

comments