সত্যের পক্ষে শিবিরের নিরন্তর পথ চলা অব্যাহত থাকবে -শিবির সেক্রেটারি

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, ইসলামী মূল্যবোধের ভিত্তিতে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে ছাত্রশিবির। কিন্তু এ পথ কন্টকমুক্ত নয়। ইসলামের কথা বললেই জালিমের জুলুম ও নির্যাতনের স্বীকার হতে হবে। এটাই রাসূল সা. এর সুন্নাহ। তাই সকল বাধা মোকাবিলা করেই সত্যের পথে নিরন্তর পথ চলা অব্যাহত থাকতে হবে।

তিনি আজ রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা অঞ্চল উত্তরের বার্ষিক পর্যালোচনা বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। কেন্দ্রীয় এইচআরডি সম্পাদক জামশেদুল আলমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগরী উওরের সভাপতি জামিল মাহমুদ, ঢাকা মহানগরী পশ্চিমের সভাপতি ডা: মুজাহিদুল ইসলাম, গাজীপুর মহানগরী সভাপতি আব্দুল জলিল আকন্দসহ মহানগরীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, ইসলামী আন্দোলনের পথে বাধা আসবে এটা ঐতিহাসিক বাস্তবতা। এই বাস্তবতার মুখোমুখি হচ্ছে ছাত্রশিবিরও। বাতিলের মোকাবিলা করতে গিয়ে শত শহীদের রক্তে স্নাত হয়েছে এই কাফেলা। অসংখ্য নেতাকর্মী আহত ও পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন। অনেক নেতাকর্মীকে হারাতে হয়েছে যাদের সন্ধান আজও পাওয়া যায়নি। সকল প্রকারের নেতা কর্মী অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে চলেছে। প্রত্যাখ্যাত আদর্শের অনুসারীরা হত্যা, জুলুম, নির্যাতন চালিয়ে বাংলার জমিন থেকে ইসলামী আন্দোলনকে নির্মূল করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু তাদের স্বপ্ন পূরণ হয়নি বরং বুমেরাং হয়েছে। সত্য পথের যাত্রীরা সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করে ইসলামী আন্দোলনকে সুদৃঢ় ভিত্তির উপর অবিচল রেখেছে। তাই এ কাফেলার প্রতিটি জনশক্তিকে যেমন একজন দা’য়ী হতে হবে তেমনি নিজেকেও দাওয়াতের বাস্তব নমুনা হিসেবে পেশ করতে হবে। জ্ঞান ও যোগ্যতা অর্জন করে সকল চ্যালেঞ্জ মোকবেলা করে দৃঢ় পদভারে মঞ্জিলের দিকে এগিয়ে যাওয়ার মত নেতৃত্ব ও কর্মী বাহিনী গঠন আজ সময়ের অনিবার্য বাস্তবতা।

তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে মুসলমানেরা নির্যাতিত হচ্ছে। সময়ের আবর্তনে ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় জালিমদের পতন ঘটবে। মাজলুম মানবতা খুঁজে পাবে ন্যায় ও ইনসাফের সৌধের উপর প্রতিষ্ঠিত একটি সুন্দর সমাজ। এই জন্য প্রয়োজন ধৈর্য্য, হিকমাত ও সাহসিকতার সাথে পরিস্থিতির মোকাবিলা করা। জাগতিক উপায় উপকরণের পরিবর্তে আল্লাহর উপর ভরসা করে পরিস্থিতি পরিবর্তনের জন্য নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় প্রচেষ্টা চালাতে হবে। বাতিলের সকল প্রকার ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করার প্রস্তুতি নিয়েই ময়দানে কাজ করতে হবে। প্রমাণ করতে হবে হত্যা নির্যাতন আমাদের ভীত করতে পারেনি বরং শহীদের প্রতিফোঁটা রক্ত আমাদেরকে এগিয়ে চলার গতিকে বেগবান করেছে। শত মায়ের আহাজারি আমাদেরকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে সহযোগিতা করেছে। হাজারো ষড়যন্ত্র আমাদেরকে মহান আদর্শের পথে দৃঢ় করেছে। কোন বাতিল শক্তি আমাদের দমিয়ে দেয়ার ক্ষমতা রাখেনা। তাই আগামী দিনে সাংগঠনিক কাজের পাশাপাশি যে কোন পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য সর্বাত্মক ভাবে প্রস্তত থাকতে হবে। -প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Comments

comments