চবিতে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা খেলেন দুই ছাত্র-ছাত্রী!

আবারও ধরা খেলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) দুই ছাত্র-ছাত্রী। আপত্তিকর অবস্থায় তাদের অনেকেই দেখেছেন। এনিয়ে চলছে ক্যাম্পাসে নানান সমালোচনা। বইছে ঝড়।

ওই অনৈতিককাজে বাধা দেয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মচারীকে মারধর করেছে ওই শিক্ষার্থীর সাঙ্গপাঙ্গরা। তাকে বেধরক পিটিয়ে আহত করা হয়।

শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা জানান, শনিবার বিকাল সাড়ে ৩ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইইআর বিভাগ সংলগ্ন এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। এনিয়ে শুরু হয়েছে নানান সমালোচনা।

আহত ওই চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর নাম সৈয়দ-উল হক। তিনি মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাব সহকারী পদে রয়েছেন। এবং তিনি স্ব-পরিবারে ঐ বিভাগের পাশে বসবাস করেন।

ঘটনার বিবরণীতে জানাযায়, বিকাল ৩ টার দিকে চবির প্রীতিলতা হলের এক ছাত্রী এবং আইএমএল এর ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের এক ছাত্র আইইআর বিভাগ (পুরাতন আইন অনুষদ) ভবনের পিছনে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হয়।

ওই ছাত্রী প্রতিলতা হলের আবাসিক শিক্ষার্থী। এসময় রাস্তা দিয়ে যেতে কর্মচারী সৈয়দের স্কুল পড়ুয়া ছেলে ছোটন তা দেখে ফেলে। আইএমএলের ঐ ছাত্র ক্ষুব্ধ হয়ে ছোটনকে মারধর করতে থাকে।

ছোটনের কান্নার শব্দ পেয়ে তার বাবা সৈয়দ-উল হক ঘটনাস্থলে যান। তার ছেলেকে কেন মারধর করছে তা জিজ্ঞাসা করলে তার উপর চওড়া হয় ঐ ছাত্র। ক্যাম্পাসের বসবাসরত কর্মচারীদের বাসার আশেপাশে কেন এমন কাজ করছেন জানতে চাইলে তাকে এলোপাথারি কিলঘুষি মেরে আহত করে।

এক পর্যায়ে তাদের হাতাহাতি হয়। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র, কর্মচারী ও স্কুল ছাত্র আহত হয়েছে বলে জানাযায়। তাদের তিনজনকে চবি মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে তথ্য মিলেছে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইইআর বিভাগ সংলগ্ন এলাকায় দুই শিক্ষার্থী আপত্তিকর কাজে লিপ্ত এমন তথ্য পেয়ে সেখানে পুলিশ যায় ।

উপস্থিত লোকজনের সহায়তায় ওই ছাত্রীকে প্রীতিলতা হলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আর ঘটনার সাথে জড়িত দুই শিক্ষার্থী এবং আহত কর্মচারীকে রবিবার প্রক্টর অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে চবি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. আক্তরুজ্জামান বলেন, কর্মচারী ও ছাত্রের মধ্যে মারামারির খবর পেয়ে আমরা বিকেলে আইআর বিভাগের পাশে যাই।

কর্মচারী ও ছাত্রকে মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কেউ আমাদের কাছে কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে রাতেই এব্যাপারে ওই শিক্ষার্থী বিভিন্ন ভাবে তদবীর শুরু করেছেন। রাজনৈতিক তদবীর ও হুমকিতে রয়েছে ওই কর্মচারী।

Comments

comments