শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে ছাত্রশিবির

অসহায় শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেশের বিত্তবান ও সামর্থবান সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। আজ রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী পশ্চিম শাখা আয়োজিত পক্ষকাল ব্যাপী শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে দরিদ্র ছাত্রদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল ড. মোবারক হোসাইন।

ড. মোবারক হোসাইন বলেন, শীত আসলে অসহায় দুস্থ মানুষেরা প্রচন্ড কষ্টে ভোগে। তাই শীতার্ত মানুষের প্রতি সমাজের সামর্থ্যবান ও বিত্তশালীদের সাহায্য ও সহানুভূতির হাত সম্প্রসারিত করা প্রয়োজন। সামর্থ থাকার পরও শীতার্তদের এড়িয়ে যাওয়া কোনভাবেই কাম্য নয়। বরং শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো সকলের নৈতিক দায়িত্ব।

ছাত্রশিবিরের ঢাকা মহানগরী পশ্চিম শাখা সভাপতি ডাঃ মুজাহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি আব্দুল আলিমের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় পাঠাগার সম্পাদক হাসনাইন আহমেদ। মহানগরী সাংগঠনিক সম্পাদক যোবাইর হোসেন রাজনসহ মহানগরীর বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

শিবির সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, শীতার্তসহ বিপন্ন সব মানুষের পাশে দাঁড়ানো ইসলামের আদর্শ। মহান আল্লাহ্ বলেন “তারা আল্লাহর প্রেমে উজ্জীবিত হয়ে দরিদ্র, ইয়াতিম ও বন্দীদেরকে খাদ্য দান করে”। অন্যদিকে আর্তমানবতার সেবায় উৎসাহ দিয়ে প্রিয়নবী (স.) বলেন “মানুষের মধ্যে সে-ই উত্তম যার দ্বারা মানবতার কল্যাণ সাধিত হয়।” প্রতি বছর যারা শীতে কষ্টে ভোগে তারা এদেশেরই নাগরিক। সাংবিধানিক অধিকার ও রাষ্ট্রের যথেষ্ট সামর্থ থাকার পরও বরাবরই শীতার্ত মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে দেশের বিত্তবানদের সংখ্যাও কম নয়। তারাও যদিও যথার্থভাবে মানবিক দায়িত্ববোধ থেকে সামান্য সহযোগিতা করত তাহলে অল্প সময়েই শীতার্তদের কষ্ট লাঘব করা সম্ভব ছিল। এই এড়িয়ে যাওয়ার মানষিকতা ও দায়িত্বহীনতা শুধু শীতার্তদের কষ্টই দিচ্ছে না বরং অধিকার থেকেও বঞ্চিত করছে।

তিনি বলেন, অসহায় শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো বিত্তবানদের নৈতিক দায়িত্ব। তাই সামর্থ্যবানদের কর্তব্য হলো, মানবসেবার ব্রতে এগিয়ে আসা এবং শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানো শীতার্তদের সার্বিক সহায়তার দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়া কাম্য নয়। আমরা আশা করি সমাজের বিত্তশালী এবং সর্বস্তরের মানুষ যার যার অবস্থানে থেকে মানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে। ছাত্রশিবির শীতার্তদের সহায়তার জন্য পক্ষকাল ব্যাপি কর্মসূচি গ্রহণ করে শীতার্তদের কষ্ট লাঘবে যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি নেতাকর্মীকে শীতার্তদের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমাদের এ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

Comments

comments