পৃথক পাঁচ মামলায় বিএনপির ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল রিমান্ডে

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দিয়ে বাসায় ফেরার সময় রাস্তায় গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের পৃথক পাঁচ মামলায় দলটির ক্রীড়া সম্পাদক ও জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হকসহ ২৯ জনের বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

আজ রোববার ঢাকার মহানগর হাকিম মাহমুদুল হাসান এই আদেশ দেন।

আমিনুল হকের আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, সেদিনের ঘটনায় বিএনপির ২৯ জন নেতা-কর্মীকে রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

আদালত সূত্র নিশ্চিত করেছে, রমনা থানার বিস্ফোরক আইনের মামলায় ১৭ জনকে একদিন করে, শাহবাগ থানার একটি বিস্ফোরক আইনের মামলায় ৬ জনের দুই দিন করে এবং শাহবাগ থানার অপর তিনটি মামলায় ৬ জনের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। পুলিশের রিমান্ড আবেদন নাকচ করে আসামিদের জামিন আবেদন করেন তাঁদের আইনজীবীরা। শুনানি শেষে আদালত আসামি পক্ষের আবেদন নাকচ করে তাঁদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত মঙ্গলবার খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার সময় শাহবাগ ও রমনা থানাধীন এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। হাইকোর্টের কদম ফোয়ারার সামনে থেকে আমিনুল হক গ্রেপ্তার হন। পুলিশের কাজে বাধা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা করে পুলিশ। এই দুই মামলায় জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হকসহ বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ২৪ নেতা-কর্মীকে প্রথমে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত বুধবার তাঁদের কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত । পরে শাহবাগ থানার পৃথক আরও তিনটি মামলায় ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। রমনা থানার মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা হাবীব-উন-নবী খানসহ ৬২ জনকে আসামি করা হয়। আর শাহবাগ থানার মামলাতেও হাবীব-উন নবী-খানসহ ৬০ জনকে আসামি করা হয়।

Comments

comments