ইবিতে প্রক্সি দিতে এসে ঢাবি শিক্ষার্থীসহ আটক দুই, এক বছরের কারাদণ্ড

পরীক্ষায় ভর্তিচ্ছুদের উপস্থিতি ছিল ৫০ শতাংশের নিচে

আটক দুই শিক্ষার্থীকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে এসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীসহ দুইজিনকে আটক করা হয়েছে। তারা হলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র কাজী ফেরদৌস হাসান জয় ও যশোর এম এম কলেজের ছাত্র সাব্বির রহমান। শুক্রবার ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষার সময় তাদের আটক করা হয়। তাদের এক বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এদিকে পরীক্ষায় ভর্তিচ্ছুদের উপস্থিতি ৫০ শতাংশের নিচে ছিল।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অধিকাংশ শিক্ষার্থী কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ এবং পার্শবর্তী জেলার। দূরদূরান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীরা গত মঙ্গলবার পরীক্ষা দিতে না পেরে বাড়ি ফিরে যায়। এছাড়া শুক্রবার মাওলানা ভাষানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা থাকায় ভর্তিচ্ছুক শিক্ষর্থীর উপস্থিতি কম ছিল।

শুক্রবার প্রথম শিফটে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ কেন্দ্রে প্রবেশের সময় দুই শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়।

সেখানে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন সহকারী প্রক্টর ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এস.এম নাসিমুজ্জামান এবং সহকারী প্রক্টর বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ রশিদুজ্জামান। হলে প্রবেশের সময় শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র যাচাই করা হয়। এসময় ওই দুই শিক্ষার্থীর প্রবেশপত্রে ছবির সাথে তাদের চেহারা মিল না পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমানের কাছে তুলে দেন। পরে প্রক্টর তাদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সোপর্দ করেন।

জয় নাটরের জিউপাড়া গ্রামের ফিরোজ আহমাদের পুত্র। তিনি দিবাশীষ সরকার (রোল ১০০৯৯) নামে এক শিক্ষার্থীর হয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন। সাব্বির যশোর বাঘারপাড়া কামারপাড়া গ্রামের বাবুর আলীর পুত্র। তিনি তন্ময় রহমান (রোল ১০০৪৫) নামে এক শিক্ষার্থীর হয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন।

কুষ্টিয়া ডিসি কোর্টের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম কমল পাবলিক পরীক্ষাসমূহ অপরাধ আইন ১৯৮০ এর ৩নং ধারা মোতাবেক তাদের প্রত্যেককে একবছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।

Comments

comments