আদালতের রায় পেয়ে শঙ্কা কাটলো আসামের মুসলমানদের

ভারতের আসাম প্রদেশে মুসলিম নাগরিত্ব মামলায় মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) মুসলমানদের পক্ষে রায় দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। ফলে প্রায় ৫০ লাখ মুসলিম নারীর নাগরিকত্ব নিয়ে যে ভয়ংকর আশঙ্কা তৈরী হয়েছিলে তা আর থাকলো না৷

আসাম নাগরিকত্ব মামলায় ২টি বিষয় আদালতে বিচারাধীন ছিলো৷ এক: আসাম সরকার বলে আসছিলো যে, নাগরিকত্বের জন্য পঞ্চায়েত সার্টিফিকেট যথেষ্ট নয়৷ আদালত একে সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাখান করেছে৷

দ্বিতীয় বিষয় ছিলো, আসামের মুসলিমরা দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক হিসেবে গণ্য হবে৷ এটাও আদালতে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে৷ আদালত তার পর্যবেক্ষণে বলেছেন, ভারতে ‘দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক’ বলতে কোনো পরিভাষা নেই৷

আসামে এক নতুন আইনে মুসলিম নাগরিকত্ব নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিলে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ(এম) শুরুতেই আইনিভাবে লড়াই শুরু করে৷ পরবর্তীতে মাওলানা সাইয়্যিদ আরশাদ মাদানির নেতৃত্বাধীন জমিয়তও আদালতে আপিল করে দুই জমিয়ত এক সঙ্গে কাজ করে৷

মামলা চলাকালেই দিল্লিতে মাওলানা সাইয়্যিদ আরশাদ মাদানির এক সেমিনারে আসামের মুসলিম নাগরিকদের নাগরিকত্ব বাতিল করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে- এমন বক্তব্যে পুরো ভারতে তোলপাড় শুরু হয়৷ এমনকি আসামসহ বিভিন্ন জায়াগায় আরশাদ মাদানির বিরুদ্ধে ‘এফআইআর’ও দাখিল করা হয়৷

মামলার রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে মাওলানা সাইয়্যিদ আরশাদ মাদানি, জমিয়ত সেক্রেটারী জেনারেল মাওলানা সাইয়্যিদ মাহমুদ আসআদ মাদানি ও আসামের পার্লামেন্ট সদস্য মাওলানা বদরুদ্দীন আজমল বলেছেন, এ মামলার বিজয় ঐতিহাসিক৷

Comments

comments