গৃহবধূকে বিষ প্রয়োগে হত্যা?

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় দুই সন্তানের জননীকে স্যালাইনের মাধ্যমে বিষ প্রয়োগ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

নিহত গৃহবধূ রেখা আক্তার (২৪)। এই ঘটনার পর চিকিৎসক আবদুর রেজ্জাক ও রেখার স্বামী মো. মানিক (৩০) পালিয়ে গেছেন।

শনিবার দুপুরে ওই গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে উপজেলার চরফকিরা ওয়ার্ডের মানিকের নতুন বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। রেখা আক্তার রামপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মো. রফিকের বাড়ির ছালেহ আহম্মদের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার রাতে গৃহবধূ রেখা আক্তার অসুস্থ হলে তার স্বামী মানিক স্থানীয় পল্লি চিকিৎসক আবদুর রেজ্জাককে ডেকে আনেন। এ সময় শারীরিক দুর্বলতা দেখে আবদুর রেজ্জাক গৃহবধূ রেখা আক্তারকে স্যালাইন পুশ করেন। স্যালাইন পুশ করার পর ওই স্যালাইনে চিকিৎসক রেজ্জাক সিরিঞ্জ দিয়ে কীটনাশক প্রয়োগ করেন বলে অভিযোগ ওঠে।

এ সময় গৃহবধূ রেখা ছটফট শুরু করলে স্যালাইন খুলে ফেলা হয়। অবস্থা বেগতিক দেখে স্বামী মানিক স্যালাইন খুলে অবশিষ্ট ওষুধ ফেলে দেয়। রেখাকে রাতেই কোম্পানীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সকালে নিহতের মৃতদেহ তড়িঘড়ি করে দাফনের প্রস্তুতির সময় পুলিশ পৌঁছালে চিকিৎসক, স্বামীসহ উপস্থিত সবাই পালিয়ে যায়। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুমন বড়ুয়া জানান, সুরতহাল রিপোর্ট তৈরির সময় ফেলে দেওয়া স্যালাইনের মধ্যে কীটনাশকের গন্ধ পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, বিষমিশ্রিত করে রেখার শরীরে স্যালাইন প্রয়োগ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ মো. ফজলে রাব্বী জানান, ধারণা করা হচ্ছে স্যালাইনের মধ্যে বিষ প্রয়োগ করে রেখাকে হত্যা করা হয়েছে। তার স্বামী মানিক একাধিক বিয়ে করার কারণে পারিবারিক কলহের জেরে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হতে পারে। এই বিষয়ে নিহতের পরিবার থেকে থানায় মামলা করা হয়েছে।

Comments

comments