নারিন-সাকিবে শেষ চারে ঢাকা

চার ওভারের স্পেলের শেষ বল সাকিব আল হাসানের। বাঁহাতি স্পিনারের আর্মার ডেলিভারিটা কোনো রকমে ব্যাটে লাগালেন মুস্তাফিজুর রহমান। সাকিবের মুখেও হাসি, হাসি মুস্তাফিজের মুখেও।

বিপিএলে দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট নেওয়ার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন সাকিব। কিন্তু মুস্তাফিজ প্রতিরোধ করায় পাঁচ উইকেট-বঞ্চিত সাকিব। দিন শেষে তার বোলিং ফিগার ৪-১-৮-৪।

৯ বল পর মুস্তাফিজের হাসিটা আর দেখা গেল না। হাসলেন শুধু সাকিব। মোসাদ্দেক মুস্তাফিজকে বোল্ড করে রাজশাহীকে অলআউট করে দেন ১০৬ রানে। ততক্ষণে সাকিবের ঢাকা ডায়নামাইটসের জয় ৯৯ রানের।

টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৫ উইকেটে ২০৫ রান করে ঢাকা। দ্বিতীয়বারের মতো রাজশাহীর বিপক্ষে দুইশর বেশি রান করল ঢাকা। রানের পাহাড়ে চাপা পড়ে রাজশাহী আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। বড় ব্যবধানে বড় হারের লজ্জা পেতে হয়েছে গতবারের রানার্সআপকে।

বোলিংয়ে সাকিব ৪ উইকেট নিয়ে রাজশাহীকে নাকানিচুবানি খাওয়ালেও মূল কাজটা করে দিয়েছিলেন সুনীল নারিন। সেটাও বোলিংয়ে নয়, ব্যাট হাতে। এভিন লুইসের পরিবর্তে ওপেনিংয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩৪ বলে ৬৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন নারিন। সেটাও ৪ চার ও ৬ ছক্কায় সাজানো ইনিংসে।

তবে ইনিংসটি সাজাতে ভাগ্যকে পাশে পেয়েছেন পাঁচবার! চারবার তার ক্যাচ ছাড়েন ফিল্ডাররা। একবার স্টাম্পিংয়ের সুযোগ হাতছাড়া করেন জাকির হাসান। ৮ রানে প্রথম ক্যাচ ছাড়েন মুমিনুল। পরবর্তীতে ১১ রানে উসামা মির, ২৩ রানে সামিত পাটেল, ৪৮ রানে মেহেদী হাসান মিরাজ তার ক্যাচ ছাড়েন। ৩৫ রানে ওয়াইড বলে স্টাম্পিংয়ের সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন জাকির। অবশেষে ১৪তম ওভারে তাকে থামান মেহেদী হাসান।

নারিন ফিরে যাওয়ার পর ঝড় তোলেন কাইরন পোলার্ড। ১৪ বলে ৪ ছক্কা ও ১ চারে করেন ৩৩ রান। এ ছাড়া নারিনের সঙ্গে ওপেনিংয়ে ১২৯ রানের জুটি গড়া জো ডেনলি ৫৪ বলে খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস।

বল হাতে কাজী অনিক ২ উইকেট নিলেও খরচ করেন ৫২ রান।

পাহাড় সমান রান তাড়া করতে নেমে ১৯ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারায় রাজশাহী। প্রথম তিনটি উইকেট নেন সাকিব। ১টি পান মোসাদ্দেক হোসেন। চতুর্থ উইকেটে মুমিনুল ও সামিত পাটেল ৩৬ রানের জুটি গড়েন। এ জুটি ভাঙার পর আর কোনো ব্যাটসম্যান রাজশাহীর হয়ে প্রতিরোধ গড়তে পারেনি। সর্বোচ্চ ২৮ রান করেন সামিত পাটেল। ১৯ রান আসে মুমিনুলের ব্যাট থেকে।

দুই দলই আজ খেলেছে নিজেদের ১১তম ম্যাচ। সাকিবের দল তুলে নিয়েছে ষষ্ঠ জয়। রাজশাহীর এটি সপ্তম হার। শেষ চারের আশা অনেকটাই শেষ রাজশাহীর। রংপুর শেষ দুই ম্যাচ হারলে এবং রাজশাহী শেষ ম্যাচ জিতলে রান রেটের হিসেবে শেষ চারে যেতেও পারে রাজশাহী। তবে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে ঢাকার শেষ চার নিশ্চিত হয়ে গেল আজই।

Comments

comments