দালাল সম্পাদকদের ধুয়ে দিলেন মাহমুদুর রহমান

দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান বলেছেন, “বাংলাদেশে বর্তমান গণমাধ্যমের অধিকাংশই স্বেচ্ছায় পরাধীনতা মেনে নিয়েছে। স্বেচ্ছায় পরাধীনতা কেন মানল বাংলাদেশের গণমাধ্যম? এটার বিশ্লেষণ করা প্রয়োজন। এই সমস্ত গণমাধ্যমের মালিক কারা? এই সমস্ত গণমাধ্যমের ৯০ শতাংশের মালিক হচ্ছে, বর্তমানে যে ফ্যাসিবাদী অবৈধ সরকার ক্ষমতায় আছে, তাদের দালাল শ্রেণি এবং সুবিধাবাদী শ্রেণি।”

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলোর বিতর্কিত ভূমিকার কঠোর সমালোচনা করেন মজলুম সম্পাদক মাহমুদুর রহমান।

বিতর্কিত সম্পাদকদের ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, “আরেক দল আছে সম্পাদক শ্রেণি। এই সম্পাদক শ্রেণির মধ্যে আমাকে তারা সম্পাদক মানতে চান না, আমাকে বলে চান্স সম্পাদক। তারা নাকি পেশাদার সম্পাদক। আমি বুয়েটের ছাত্র ছিলাম, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ’র ছাত্র ছিলাম, আমি জাপানে পড়াশুনা করেছি, কিন্তু আমি চান্স সম্পাদক।”

“অনেক পেশাদার সম্পাদকের আমরা যদি সার্টিফিকেট খুঁজতে যাই তাহলে তাদের সার্টিফিকেট খুঁজে পাওয়া মুশকিল হবে, তারা কোথায় কতটুকু পড়াশুনা করেছেন। যাদের কোনো সার্টিফিকেট খুঁজে পাওয়া যাবে না, তারা হলেন পেশাদার সম্পাদক। এই হলো বাংলাদেশের গণমাধ্যমের অবস্থান।”

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি উদযাপনে নাগরিক সমাবেশের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “একদিন বক্তৃতা দেখলাম, একদিন মিছিল দেখলাম বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে এবং পুলিশ পর্যন্ত উর্দি পরে মিছিল করেছে। সেখানে আমি দেখলাম একটা অনুষ্ঠানের আয়োজনে সেই সব সম্পাদকরা ছিলেন তারা ওই অনুষ্ঠানের বক্তৃতার আয়োজন কর্তা। আওয়ামী লীগের অনুষ্ঠান আয়োজন করছেন এসব সম্পাদকরা। তার মধ্যে আমি এখানে দেখতে পারছি একাত্তর টিভি। সেই টিভির মোজ্জাম্মেল বাবু সাহেব একজন মহা উদ্যোক্তা ছিলেন। এখানে সমকালের কেউ আছেন কি না জানি না। সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার সাহেবও সেখান বক্তৃতা করেছেন, তিনিও উদ্যোক্তা ছিলেন।

কিন্তু তারা বলবেন আমরা নিরপেক্ষ। তারা দলীয় অনুষ্ঠানের আয়োজনের সাথে থাকবেন, বক্তৃতা দেবেন আর বলবেন নিরপেক্ষ। এটাই হচ্ছে বাংলাদেশের সংবাদ বা গণমাধ্যমের প্রকৃত চেহারা এবং এটা এখন অবৈধ প্রধানমন্ত্রীর দালাল ও দিল্লির তাবেদারদের দখলে চলে গেছে।”

Comments

comments