দু’দফায় ইঞ্জিন বিকল হয়ে আটকা পড়েছে ‘গ্রীনলাইন লঞ্চ’: খাদ্য সংকট, চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা

ঢাকা থেকে ৫৬৮ জন যাত্রী নিয়ে বরিশালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া দ্রুত গতি সম্পন্ন গ্রীনলাইনের একটি লঞ্চ দুইবার ইঞ্জিন বিকল হয়েছে। আজ সকাল ৮ টায় ঢাকার সদরঘাট থেকে ছেড়ে এসে লঞ্চটি সাড়ে ৮ টার দিকে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বিকল হয়ে পড়ে।

পরে ঝুঁকি নিয়ে একটি ইঞ্জিন দিয়েই বাকি পথ যাত্রা করে। বাকিটা দুপুর ১ টার দিকে বরিশালের হিজলা এলাকায় গিয়ে বিকল হয়ে পড়ে। এই ঘটনায় খাদ্য সংকটসহ কর্তৃপক্ষ বিকল্প কোনো লঞ্চ না পাঠানোয় চরম দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।

যাত্রীদের অভিযোগ প্রায় প্রতিদিনই গ্রীনলাইনের কোনো না কোনো লঞ্চের ইঞ্জিন বিকলের ঘটনা ঘটছে। সামান্য মেরামত করে আবার সেগুলো বহরে যোগ করায় একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। যাত্রীরা জানান, দ্রুত গতির ও উন্নত সেবা নিয়ে গ্রীনলাইন চালু হলেও কিছুদিন ধরে লঞ্চটি বাজে সার্ভিস দিচ্ছে। প্রায়ই মাঝ নদীতে লঞ্চের ইঞ্জিন বিকল হয়ে পড়ে। সাধারণত লঞ্চ দুইটি ইঞ্জিন নিয়ে যাত্রা করে।

কিন্তু আজ সকালে ছেড়ে আসার আধা ঘণ্টা পর একটি ইঞ্জিন বিকল হলেও বিকল্প লঞ্চ দেয়নি কর্তৃপক্ষ। বরং ভাড়া আদায়ের আশায় বাকি একটি ইঞ্জিন দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চটি যাত্রা করে। এতে ব্যালেন্স না রাখতে পারায় আবার বিকল হয়ে পড়ে। এখন লাইনে রাতে চলাচলকারী লঞ্চ অথবা এলাকায় চলাচলকারী ছোট লঞ্চ দিয়ে এসব যাত্রী বরিশাল পৌঁছানোর কথা বলছে।

যোগাযোগ করা হলে গ্রীনলাইনের মালিক মো. আলাউদ্দিন জানান, বিকাল সাড়ে তিনটার আগে দুটি ও ৪ টার দিতে একটি মোট তিনটি ছোট লঞ্চ পাঠিয়েছি যাত্রীদের উদ্ধার করে বরিশাল পৌছে দেয়ার জন্য। হিজলা এলাকায় নদীতে পানি কম থাকায় জাহাজের পাখা ভেঙ্গে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। আমরা যথা সম্ভব দ্রুত যাত্রীদের উদ্ধারের চেষ্টা করছি।

Comments

comments