‘র’র সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ‘বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ’ আছে: পাকিস্তান

পাকিস্তান বলেছে, ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’, পাকিস্তান তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি), জামাতুল আহরার এবং আফগানিস্তানে অন্যান্য সন্ত্রাসী গ্রুপের সাথে একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে বলে বিশ্বাসযোগ্য তথ্য রয়েছে। পাকিস্তান পররাষ্ট্র দফতরের একজন মুখপাত্র বৃহস্পতিবার একথা বলেন।

“আফগানিস্তানের সাথে আমরা এসব প্রমাণাদি নিয়ে কথা বলেছি এবং আফগানিস্তান এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে বলে আশা করছি। আফগানিস্তান তার এলাকা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতকে ব্যবহার করতে দেওয়া উচিত নয়, ” পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ড. মুহাম্মদ ফয়সাল সাপ্তাহিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের জানান।

তিনি বলেন, পাকিস্তান বারংবার এই সত্যকে তুলে ধরেছে যে টিটিপি, জাওএ, দাইশ এবং অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলি আফগানিস্তানে অভয়ারণ্য প্রতিষ্ঠা করেছে এবং পাকিস্তানে সন্ত্রাসী হামলার সাথে জড়িত।

আফগানিস্তানের মুখ্য নির্বাহী ড. আবদুল্লাহ আবদুল্লাহর একটি সাম্প্রতিক বিবৃতির প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, “টিটিপি সোয়াত নেতা, মোল্লাহ ফজল উল্লাহ, পেশোয়ারের আর্মি পাবলিক স্কুলে হামলার মূল চালিকাশক্তি এবং এই অপরাধী আফগানিস্তানে লুকিয়ে আছেন”। ড. আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ আরও বলেছিলেন, আফগানিস্তানে টিটিপির শক্তিশালী উপস্থিতি রয়েছে।

টিটিপিসহ যেসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আফগানিস্তান থেকে পাকিস্তানে সন্ত্রাসী হামলা করছে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়ে আফগানিস্তানে নিযুক্ত মার্কিন সামরিক কমান্ডার, জেনারেল জন নিকোলসনের সাম্প্রতিক বিবৃতির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ফয়সাল বলেন, এটি একটি স্বাগত উন্নয়ন।

“যদি এমন কোন প্রস্তাব থাকে তবে এটি একটি স্বাগত উন্নয়ন হবে, যেমনটি আমরা আফগান সরকারকেও বলেছিলাম।” “টিটিপি, জাওএসহ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করে পাকিস্তানে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছে” তিনি যোগ করেন।

তবে, তিনি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জেনারেলের অফার সম্পর্কে পাকিস্তান এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে যোগাযোগ করেনি।
তিনি নিশ্চিত করেছেন যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস‘র পাকিস্তান সফর আগামী কয়েক সপ্তাহে হতে পারে এবং কূটনৈতিক চ্যানেল এই সফরের জন্য পারস্পরিক সুবিধাজনক তারিখগুলি নিয়ে কাজ করছে।

এক প্রশ্নের জবাবে মুখপাত্র বলেন, ২০১৮ সালের মধ্যে কংগ্রেস কর্তৃক ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাট্রিবিউশন বিল পাসের জন্য হাক্কানি নেটওয়ার্ক সংক্রান্ত শর্তটি নতুন নয়, যার মধ্যে রয়েছে কোয়ালিশন সাপোর্ট ফান্ডের অধীনে পাকিস্তানকে ৭০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদানের বিধান।

তিনি বলেন, এ অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সকল বিষয়ে আলোচনার জন্য পাকিস্তান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জড়িত ছিল।

তিনি বলেন, “৪৩শতাংশেরও বেশি আফগান অঞ্চল সন্ত্রাসী সংগঠনের জন্য সংরক্ষিত স্থান ও নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে”। তিনি দাবি করেন যে পাকিস্তানের হাক্কানি নেটওয়ার্কেরও কোন নিরাপদ আশ্রয়স্থল আছে।

মুখপাত্রের মতে, সুইস সরকার বেলুচ বিচ্ছিন্নতাবাদী মেহেরান মাররিকে তার অঞ্চলে প্রবেশের অনুমতি দেয়নি। তিনি বলেন, “আমরা বন্ধুত্বপূর্ণ দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক প্রত্যক্ষভাবে অব্যাহত রাখতে চাই”

“আমরা এই বিষয়ে আমাদের প্রচেষ্টাকে দ্বিগুণ করতে দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ। সুইজারল্যান্ড বুঝতে পেরেছে যে মেহেরান মাররি তাদের জাতীয় স্বার্থ/নিরাপত্তার জন্য হুমকি এবং তাকে এন্ট্রি অস্বীকার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটা সন্ত্রাসীদের মাটির উপর মঞ্জুরি দেওয়ার জন্য কোন দেশের পক্ষে নয় “।
সূত্র: দ্যা এক্সপ্রেস ট্রিবিউন, পাকিস্তান

Comments

comments