দুপুরে রংপুরের প্রতিপক্ষ খুলনা

সিলেট ও ঢাকার প্রথম পর্ব শেষ হওয়ার পর শুক্রবার থেকে বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্ব শুরু হচ্ছে। সাগর পাড়ের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম বিপিএলের সাতটি দলকে আতিথেয়তা দিতে প্রস্তুত। চট্টগ্রাম পর্বে সবমিলিয়ে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে মোট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ১০টি।

শুক্রবার উদ্বোধনী দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে খুলনা টাইটানস ও রংপুর রাইডার্স। সন্ধ্যায় স্বাগতিক চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে লড়বে সিলেট সিক্সার্স। স্বাগতিক দলটি এই মাঠে চারটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। ম্যাচগুলো সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি ও মাছরাঙা টেলিভিশন।

সিলেটের মতো চট্টগ্রামেও বিপিএল নিয়ে তেমন উন্মাদনা নেই! তরুণ-যুবক কারও মধ্যেই ম্যাচটি ঘিরে তেমন উত্তেজনার পারদ চরমে উঠতে দেখা যাচ্ছে না। উন্মাদনার কমতি হিসেবে চিটাগং ভাইকিংসের পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থাকাটা একটা কারণ। তাছাড়া দলটিতে স্থানীয় তারকা খেলোয়াড় কুমিল্লাতে চলে যাওয়াতে চট্টলাবাসীর খুব একটা আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। এই কারণেই সিলেটর মতো বন্দরনগরী চট্টগ্রামে টিকিট নিয়ে হাহাকার সেভাবে লক্ষ্য করা যায়নি। তবে শেষ মুহূর্তে যারা খেলা দেখতে চান তাদের টিকেট কেনার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। দর্শকরা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বিটাক মোড় এবং এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমন্যাসিয়ামের কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন।

স্থানীয় দর্শকদের মধ্যে উত্তেজনা না থাকলেও দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে কিছুটা হলেও উত্তাপ টের পাওয়া গেছে। ‘বিনা যুদ্ধে নাহি দিব সূচ্যগ্র মেদিনী’ – এই মুহূর্তে দুই দলের মনোভাব বোঝাতে সম্ভবত এর চেয়ে আর কোনও ভালো উপমা হতে পারে না।

অনুশীলনে পেসার জুনায়েদের সঙ্গে কোচ মাহেলা
পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করতে খুলনা টাইটানসের চোখ থাকবে জয়ের দিকেই। কেননা ম্যাচটি জিতলেই শীর্ষে উঠার সুযোগ থাকছে গতবারের তৃতীয় হওয়া দলটির। যদিও খুলনা টাইটানসের অধিনায়ক জয় নিয়ে ভাবছেন না। মাঠে নিজেদের সেরা খেলার দিকেই মনোযোগ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের, ‘রংপুর অনেক ভালো দল। তাদের দলে বেশকিছু তারকা ক্রিকেটার আছে। আমরা জয়ের চিন্তা করে মাঠে নামবো। আমাদের লক্ষ্য সেরা পারফরম্যান্স দেখানো। আর তাতেই ম্যাচের ফল আমাদের পক্ষে চলে আসবে।’

এদিকে জয়টা গুরুত্বপূর্ণ রংপুরের জন্য। কাগজে-কলমে শক্তিশালী দল গড়েও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেনি মাশরাফিরা। ৬ ম্যাচের মধ্যে তিনটিতে জিতেছে রংপুর। তাতে পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান পঞ্চম। তবে শেষ দুটি ম্যাচে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং মিলিয়ে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে তারা। এমন দুটি জয়ের পর নিশ্চিতভাবেই আত্মবিশ্বাসী থাকবে রংপুর রাইডার্সের ক্রিকেটাররা। সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই বলেছেন রুবেল হোসেন, ‘আমরা জয় পাচ্ছিলাম না। টানা দুটি জয়ে খেলোয়াড়দের মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। আশা করি সামনের ম্যাচগুলোতে এটা কাজে লাগাতে পারবো।’

রংপুর রাইডার্সে সারা বিশ্বে টি-টোয়েন্টিতে ফেরি করে বেড়ানো গেইল, ম্যাককালাম ছাড়াও রবি বোপারা কিংবা উপুল থারাঙ্গার মতো শক্তিমান ক্রিকেটার রয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে টানা দুই ম্যাচ জিতে দারুণ আত্মবিশ্বাসী রংপুর। তাই খুলনার বিপক্ষে চাপ নিতে রাজি নয় শিরোপা প্রত্যাশী দলটি। দলের প্রতিনিধি হয়ে আসা রুবেল হোসেন খুলনার বিপক্ষে ম্যাচটিকে ‘সাধারণ’ হিসেবেই দেখছেন, ‘খুলনার ম্যাচটি অন্য সব ম্যাচের মতোই। আমরা ভালো খেলতে পারলে এই ম্যাচও জিততে পারবো। টানা দুই জয়ের আত্মবিশ্বাস শুক্রবারের ম্যাচে আমরা দেখাতে পারবো।’

গেইল-ম্যাককালামের মতো বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান খুলনার স্কোয়াডে না থাকলেও ব্র্যাথওয়েট, রাইলি রোসো, আরিফুল হক, মাহমুদউল্লাহও কম নন! আরিফুল-ব্র্যাথওয়েট-মাহমুদউল্লাহ কম্বিনেশনই তো খুলনাকে বেশ কিছু ম্যাচ জিতিয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে আত্মবিশ্বাসী মাহমুদউল্লাহ, ‘আমাদের দলটি বেশ ভারসাম্যপূর্ণ। টপ অর্ডার আস্তে আস্তে রানে ফিরছে। আমাদের লো মিডল অর্ডারে আরিফুলের মতো ব্যাটসম্যান আছে। আশা করি সে ওই জায়গাতে প্রয়োজন মতো দারুণ কিছু করে দেখাবে।’

Comments

comments