উৎপল-সিজারের নিখোঁজের নেপথ্যে সন্দেহের তীর সরকারের দিকেই!

গত নয় দিনেও খোঁজ মেলেনি নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক ড. মোবাশ্বার হাসান সিজারের৷ তাঁর নিখোঁজের কারণও বলতে পারছে না পুলিশ৷ পরিবারের সদস্যদের শুধু ‘উদ্ধারের চেষ্টা’র কথাই জানানো হচ্ছে৷
ড. মোবাশ্বার হাসান সিজার বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের বিস্তার নিয়ে গবেষণাধর্মী কাজের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন৷ বাংলাদেশের রাজনীতিতে ধর্মীয় সম্পৃক্ততাও ছিল তাঁর গবেষণার বিষয়৷ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ‘অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন’ প্রকল্পের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি৷
গত মঙ্গলবার (১৪.১১.১৭) ছাত্রদের উদ্যোগে একটি মানববন্ধন কর্মসূচি আহ্বান করা হয়েছিল৷ ফেসবুকে এ নিয়ে প্রচারও হয়৷ পরে অজ্ঞাত কারণে ওই কর্মসূচি বাতিল করা হয়৷

অনেকের মতে, প্রশাসনের সাম্প্রতিক জঙ্গি অভিযানের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ছিল সিজারের কাছে যা প্রকাশ হলে সরকার ও প্রশাসন বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে পারে। আর এজন্যই তাকে গুম করা হয়েছে।

এর আগে গত ১০ অক্টোবর নিখোঁজ হন অনলাইন নিউজ পোর্টাল পূর্বপশ্চিমবিডি ডট কমের সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাস।
কিন্তু একমাসের বেশি সময় পার হলেও উৎপল দাসের কোন সন্ধান করতে পারেনি পুলিশ।
উৎপল দাসের বাবা চিত্তরঞ্জন দাস জানান,“১০ অক্টোবর দুপুরে উৎপলের সঙ্গে তার মা বিমলা রানী দাসের সর্বশেষ কথা হয় মোবাইল ফোনে। তখন উৎপল অফিসে ছিলেন। এরপর বিকাল থেকে তার মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে”।
উৎপল ৭-৮ বছর ধরে সাংবাদিকতা করছেন৷তিনি আওয়ামী লীগ বিটের সাংবাদিক হলেও সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার কিছু স্ট্যাটাস ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন ধারার ৷পূর্বপশ্চিমবিডি’র বার্তা সম্পাদক শাহনেওয়াজ সুমন বলেন,‘‘উৎপল কোনো প্রতিবেদনের কারণে চাপ বা হুমকির মুখে ছিল বলে আমাদের জানা নাই৷তবে সম্প্রতি তার কয়েকটি ফেসবুক স্ট্যাটাস ছিল সাংঘর্ষিক৷এর মধ্যে সে তার বন্ধুদের অনুরোধে কয়েকটি স্ট্যাটাস মুছেও ফেলে৷’’

এমনকি অপহরণকারী পরিচয়ে যে নাম্বারগুলো থেকে ফোন দেয়ে হয়েছিল সেগুলোর বিষয়েও প্রশাসন কোন সুরাহা করতে পারেনি।তাই সাংবাদিক উৎপল দাসকে নিয়েও অনেকে সন্দেহের আঙ্গুল তুলছেন সরকারের দিকে।

তবে, গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের মর্গ উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সাংবাদিক উৎপল দাস ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মুবাশ্বার হাসান সিজারকে উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চেষ্টা চালাচ্ছে”।
এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাদের ফিরে আসার ব্যাপারেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Comments

comments