সভাপতিকে বরণে খরচ না দেয়ায় হোটেল বন্ধ করলো ছাত্রলীগ

বান্দরবান সফর করতে আসা কেন্দ্রীয় সভাপতিকে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে বরণ করতে যাওয়ার খরচ না দেয়ায় চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসের সামনের একটি হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট তালাবদ্ধ করে দিয়েছে। অবশ্য একঘণ্টা পর দক্ষিণ রাউজান ছাত্রলীগ নেতার মধ্যস্থতায় ওই দোকান পুনরায় খুলে দেয়া হয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় চুয়েট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ।

ক্যাম্পাসের বাইরের খাজা গরীবে নেওয়াজ হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টের মালিক মো. আনোয়ার বলেন, ‘শুক্রবার বিকেলে আমি বাড়িতে ছিলাম। আছরের নামাজ পড়ার সময় দেখি চুয়েট ছাত্রলীগ নেতা বাকেরের ফোন এসেছে। কল রিসিভ করার পর তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতিকে চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে বরণ করে আনতে যাওয়ার কথা বলে আমাকে গাড়ি ভাড়া ম্যানেজ করে দিতে বলেন। এসময় তাতে অস্বীকৃতি জানালে তিনি আমাকে দোকান বন্ধ করে দেয়ার ভয় হুমকি দেয়। এর কিছুক্ষণ পর বাকেরসহ আরো ২৫-৩০জন ছেলে এসে আমার দোকান তালাবদ্ধ করে দিয়ে চাবি নিয়ে যায়। বিষয়টি আমি স্থানীয় পাহাড়তলী ইউপি চেয়ারম্যান রোকন উদ্দিনসহ স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দকে জানাই। প্রায় একঘন্টার দক্ষিণ রাউজান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিনসহ অপরাপর নেতৃবৃন্দের মধ্যস্থতায় দোকান পুনরায় খুলে দেয়া হয়।’

এ প্রসঙ্গে দক্ষিণ রাউজান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ‘চেয়ারম্যান ও দোকান মালিকের কাছে খবর পেয়ে আমি চুয়েটে গিয়ে বাকেরের সাথে কথা বলি। বাকের ওই দোকানদারের কাছে দুইহাজার টাকা ধার চেয়েছে বলে আমাকে জানিয়েছেন। তবে সেটি চাঁদা নয় বলে বাকের দাবি করেন। পরে অবশ্য বাকের আমাকে ওই দোকানের চাবিটি দিয়ে দেয়। এরপর দোকানটি খুলে দেয়া হয়।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চুয়েট ছাত্রলীগ আহবায়ক কমিটির সদস্য দাবি করে বাকের বলেন, এধরণের কোন ঘটনাই আমার সাথে ঘটেনি। আমি চট্টগ্রাম শহরে আছি। চুয়েটে যায়নি। সামনে চুয়েট ছাত্রলীগের কমিটি হবে, তাই কেউ আমার নামে এধরণের কথাবার্তা বলছে। চুয়েট ছাত্রলীগ চুয়েটে ভালো কাজই করে।

শীর্ষনিউজ

Comments

comments