ছাত্রলীগ সভাপতির উত্যক্তে ও নির্যাতনে কলেজ ছাত্রী আত্মহত্যা

অব্যাহত উত্যক্তের পর প্রতিবাদী হয়ে উঠতে বাধ্য হন জয়ী মণ্ডল। কিন্তু কাউকে পাশে পায়নি জয়ী। অবশেষে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে সে।

কয়েক মাস ধরে বাজুয়া এলবিকে সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী জয়ীকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল বাজুয়া এসএম ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইনজামামুল হক মির্জা। প্রথমে মুখ বুঝে সহ্য করে। শেষে আর না পেরে প্রতিবাদ করে। সেই প্রতিবাদের পর তার ওপর প্রকাশ্যে নির্যাতন চালানো হয়।

কলেজছাত্রীর সহপাঠীরা জানায়, গত রোববার বিকেলে সে দুই সহপাঠীসহ স্থানীয় এক শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছিল। রাস্তায় তার গতিরোধ করে ইনজামামুল হক মির্জা। জয়ীও রুখে দাঁড়িয়ে তাকে চড় মারে। ক্ষিপ্ত হয়ে জয়ীকে রাস্তায় ফেলে বেদম পেটায় মির্জা ও তার সহযোগীরা। নালিশ করেও এই নির্যাতনের বিচার পায়নি জয়ী। ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সাহস পায়নি কেউ। শেষে লজ্জা ও অপমানে কলেজ হোস্টেলে ফিরে নিজ কক্ষে আত্মহত্যা করে জয়ী। গত সোমবার সকালে হোস্টেল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ অপমৃত্যু মামলা করেছে।

জয়ী দাকোপের বানীশান্তা ইউনিয়নের উত্তর বানীশান্তা গ্রামের কুমারেশ মণ্ডলের মেয়ে। দুই ভাইবোনের মধ্যে সে ছিল ছোট। গত শুক্রবার বাড়ি থেকে কলেজ হোস্টেলে ফিরে আসে। কয়েক মাস ধরে কলেজ হোস্টেলে থেকে স্থানীয় এক শিক্ষকের কাছে পদার্থবিজ্ঞান বিষয়ে প্রাইভেট পড়ছিল জয়ী।

জয়ীর বড় ভাই দেবাঞ্জন মণ্ডল জানান, অনেক দিন ধরে উত্ত্যক্তের শিকার তার ছোট বোন মান-সম্মানের ভয়ে পরিবারের কাউকে জানায়নি। কিন্তু সন্ত্রাসীরা শেষ পর্যন্ত তাকে বাঁচতে দেয়নি। দাকোপ থানা পুলিশ জানায়, সোমবার সকাল ৯টার দিকে কলেজ হোস্টেলের কক্ষ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় জয়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

দাকোপ থানার ওসি সাহাবুদ্দিন চৌধুরী জানান, উত্ত্যক্তের প্রমাণ এখনও পাওয়া যায়নি। যেহেতু রোববার বিকেলের ঘটনার ধারাবাহিকতায় মেয়েটা আত্মহত্যা করেছে, তাই ইনজামামুল হক মির্জাকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে। তাকে গ্রেফতার করা গেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

সরকারি এলবিকে মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ কুমারেশ মণ্ডল বলেন, কলেজের মেয়েদের কাছে ঘটনার বিস্তারিত শুনেছি। ওর মৃত্যুর জন্য ইনজামামুল হক মির্জা দায়ী। এ ঘটনায় ভীত হয়ে কলেজছাত্রী অনেকে বাড়ি চলে গেছে।

শীর্ষনিউজ

Comments

comments