‘আমি অডিওর শাহাদত নই’

শাহাদত হোসেন

ফেনীতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় প্রকাশিত অডিওর কণ্ঠস্বর নিজের নয় বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সভাপতি শাহাদত হোসেন। ওই কণ্ঠস্বর ফেনীর ধর্মপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শাহাদত হোসেন ওরফে সাকার বলে দাবি করেন তিনি।

আজ সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব দাবি করেন শাহাদত হোসেন। গাড়িবহরে হামলাকারীরা সরকারদলীয় সন্ত্রাসী বলে তিনি অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে শাহাদত হোসেন দাবি করেন, ফেনীতে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা নিয়ে একটি অনলাইন পত্রিকা তাঁর ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালিয়েছে। এটি ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও কারসাজিপূর্ণ। ফেনীর হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের নাম ও ছবি বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও টিভিতে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। এ হামলা পরিচালনার মূল দায়িত্বে ছিলেন শর্শদী ইউপির চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঁইয়া ও ধর্মপুর ইউপির শাহাদত হোসেন সাকা। চেয়ারম্যান শাহাদত হোসেন সাকার নামের জায়গায় তাঁর নাম দিয়ে এই অপপ্রচার চালানো হয়েছে। একটি মহল পরিকল্পিতভাবে এই অপপ্রচার চালাচ্ছে।

৩০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে কাউকে মারা তো দূরের কথা, চড়-থাপ্পড়ের নির্দেশ দেননি বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন শাহাদত হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমি সব সময় রাজনীতির সুষ্ঠু ধারায় বিশ্বাসী এবং পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করে এসেছি। আমার কণ্ঠ দেশবাসী চেনে ও জানে। বিভিন্ন মিডিয়ার টকশোতে আমি সব সময় কথা বলে আসছি। দৈনিক খবর ২৪ ডট কম অনলাইন পত্রিকা আমার ছবি ও কণ্ঠ বলে যে অডিও প্রকাশ করেছে, আমি সেই শাহাদত নই। আমি এর নিন্দা জানাচ্ছি।’

ওই সংবাদে যে অডিও ও ভিডিও টেপ প্রকাশ করা হয়েছে, ওই ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় এনে শাস্তির জোর দাবি জানান চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সভাপতি শাহাদত হোসেন। এ ছাড়া ওই অনলাইনের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি দেলোওয়ার হোসেন, নগর বিএনপির সহসভাপতি এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, আশরাফ চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক ইস্কান্দর মির্জা, ইয়াছিন চৌধুরী প্রমুখ।

প্রথমআলো

Comments

comments