স্বামীর দাবি নিয়ে মেয়ের বাড়িতে ছেলের অনশন!

ঠাকুরগাঁও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসুও ইউনিয়নের আলোকছিপি গ্রামের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ‘স্ত্রী’ দাবি করে অনশন শুরু করেছে রুবেল (২২) নামে যুবক। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা থেকে রুবেল ওই স্কুলছাত্রীকে স্ত্রী দাবি করে অনশন শুরু করে।

রুবেল (২২) একই উপেজলার ভানোর ইউনিয়নের কাচকালি এলাকার আসিরউদ্দিন (কালুর) ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ওই এলাকার আসিরউদ্দিনের (কালুর) ছেলে অর্নাস পড়ুয়া রুবেলের (২২) সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল ওই ছাত্রীর। সম্প্রতি মেয়েটি ছেলেটিকে বিয়ে করতে চাইলে মেয়ের বাবা ‘বিয়ের বয়স হয়নি’ বলে নিজ মেয়েকে শাসন করেন। কয়েকদিন পর অভিমানে ওই স্কুলছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে চিকিৎসা শেষে সে সুস্থ হয়।

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার পর ওই স্কুলছাত্রী রুবেলের সঙ্গে যোগাোযোগ অব্যাহত রাখে বলে অনেকেই জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রুবেল ওই ছাত্রীকে স্ত্রী দাবি করে তার বাড়ির সামনে অনশন শুরু করে। ওই মেয়ের বাবা ওহাব আলী রুবেলের কাছে বিয়ের প্রমাণ চাইলে অনশনরত অবস্থায় বিয়ের কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।

অনশনরত যুবক রুবেল বলেন, স্কুলপড়ুয়া ওই মেয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন যাবৎ প্রেমের সম্পর্কের পর কিছু আগে কোর্টের মাধ্যমে বিয়ে করেন। তাই নিজ স্ত্রীকে নিয়ে যাওয়ার জন্য এসেছেন। কিন্তু মেয়ের বাবা তার দাবি মানতে নারাজ। তাই তিনি আদালতের কাগজপত্র আনার ব্যবস্থা করছেন। ‘স্ত্রীকে’ না নিয়ে তিনি ফিরবেন না বলে জানান।

এ বিষয়ে ওই স্কুলছাত্রীর সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে পারিবারিক বাধায় সম্ভব হয়নি।

মেয়ের বাবা ওহাব আলী জানান, আমার মেয়ে মাত্র অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। এখনো সে নাবালিকা, বিয়ের বয়স হয়নি। রুবেল নামে ছেলেটি আমার মেয়েকে স্ত্রী দাবি করছে কিন্তু কোন প্রমাণ দেখাতে পারছে না। রুবেলের পরিবারের সাথে যোগাযোগ চলছে তারা এলে বিষয়টি সুরাহা করা হবে।

উপজেলার দুওসুও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জানান, অনশনের বিষয়টি জেনেছি। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কারও অভিযোগ পাইনি। তাছাড়া মেয়েটি যেহেতু নাবালিকা সেখানে আদালতের মাধ্যমে বিবাহের বিষয়টি সন্দেহজনক।

গত রাত ১২টায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ওই যুবক মেয়ের বাড়ির সামনে অবস্থান করছিল।

Comments

comments