নিউ ইয়র্কে পুলিশ হেফাজতে তরুণী ধর্ষণ

পুলিশ হেফাজতে হাতকড়া পরা অবস্থায় এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে নিউ ইয়র্ক শহর পুলিশের দুই সদস্যের বিরুদ্ধে। ওই তরুণীকে গাঁজা সেবনের দায়ে আটক করা হয়েছিল। অভিযুক্ত দুই কর্মকর্তা এডি মার্টিনস ও রিচার্ড হলকে আগামী সপ্তাহে আদালতে তোলা হবে বলে মিররের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

খবরে বলা হয়, কনি দ্বীপের সিপোটল রেস্টুরেন্টের গাড়ি পার্কিংয়ে বসে অ্যানা চ্যাম্বার্স গাঁজা সেবন করছিলেন। সেখান থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে ওই তরুণী নিজেকে অ্যানা চ্যাম্বার্স হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। ওই তরুণীর দাবি, আটক অবস্থায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা তাকে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের জন্য চেষ্টা করে। পরে তাদের একজন তাকে ধর্ষণ করে।

তবে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও পুলিশের দাবি, যা হওয়ার তরুণীর ‘সম্মতিতেই’ হয়েছে। এ ব্যাপারে ওই পুলিশ কর্মকর্তারা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে প্রসিকিউশনের কাছে তাদের বক্তব্য তুলে ধরেছেন। তারা লিখেছেন, ওই তরুণীর সম্মতিতেই তার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক হয়েছিল এবং ঘটনাটি সামনে আসার পর সবার দৃষ্টি আকর্ষণে ওই তরুণী সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক উত্তেজক ছবি পোস্ট করেছেন।

পুলিশ যে ‘সম্মতি’র দাবির কথা বলেছে তার কঠোর সামলোচনা করে অ্যানা বলেছেন, হাতকড়া পরা অবস্থায় কোনো নারী অবশ্য পুলিশের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের জন্য অপেক্ষা করতে পারে না। অ্যানার আইনজীবী মিশেল ডেভিড নিউ ইয়র্ক পোস্টকে বলেছেন, আমার মক্কেল চায়, সবাই এটা জানুক। পুলিশ যে ‘সম্মতির’ দাবি তুলেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

‘তিনি (অ্যানা চ্যাম্বার্স) ধর্ষণের শিকার হয়েছেন, হাতকড়া পরা অবস্থায় তাকে ভয়ঙ্কর ও নির্মমভাবে ধর্ষণ করা হয়েছে। এটাই সত্য,’ বলেন ডেভিড।

Comments

comments