খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে দফায় দফায় হামলা

রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিতে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে ফেনীতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গাড়ি বহরে অতর্কিত হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

আজ শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফেনী শহরের পাঁচ কিলোমিটার আগে মোহাম্মদ আলী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা অর্ধশতাধিক গড়ি ভাঙচুর করেছে। একাত্তর টিভি, বৈশাখী, ডিবিসি, চ্যানেল আই, প্রথম আলো, ডেইলি স্টারের গাড়ি, খালেদা জিয়ার মিডিয়া উইংয়ের গাড়ি হামলার শিকার হয়। বহরের পেছনে থাকা প্রায় সব গাড়ি বেছে বেছে ভাঙচুর করা হয়।

ফেনী শহরের মহিপালেও ভাঙচুর ও হামলা চালানো হয়েছে। এছাড়া কুমিল্লার ইলিয়টগঞ্জে, ভবেরচর ও দাউদকান্দিতে হামলা হয়েছে। এ ঘটনায় অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। খালেদা জিয়ার গাড়ি চলে যাওয়ার মিনিট কয়েক পরেই এ হামলা হয়। আক্রমণকারীরা ছাত্রলীগ, যুবলীগের বলে তাৎক্ষণিকভাবে জানা গেছে। সবার হাতে লাঠিসোটা ছিল। কয়েকজনের হাতে ছিল অস্ত্র।

রাত পৌনে ৮টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত খালেদা জিয়া ফেনী সার্কিট হাউজে অবস্থান করছিলেন। রাতে তার চট্টগ্রামে অবস্থানের কথা থাকলেও এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত জানা যায়নি।

তীব্র যানজটে আটকা পড়ে খালেদা জিয়ার গাড়ি বহর
সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবির পরিদর্শন ও ত্রাণ বিতরণের করতে কক্সবাজারের উখিয়া যাওয়ার পথে শনিবার মহাসড়কে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে তাকে সংবর্ধনা জানিয়েছে হাজারো নেতাকর্মী। মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে নেতাকর্মীরা শো-ডাউন করে বেগম খালেদা জিয়াকে অভিনন্দন জানান।

দুর্বৃত্তদের হামলায় বেশ কয়েকটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

খালেদা জিয়াকে অভ্যর্থনা জানাতে আজ শনিবার সকাল ৮টা থেকে কাঁচপুর থেকে মেঘনা সেতুর বিভিন্ন পয়েন্টে হাজারো নেতাকর্মী রাস্তার দু’পাশে দাড়িয়ে নেত্রীর সফরকে সফল করতে নানা শ্লোগান দেন। শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে খালেদা জিয়া মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকা অতিক্রম করার সময় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের ছবি যুক্ত প্লেকার্ড ফেস্টুন ও রং বেরঙ্গের পোস্টার নিয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দিয়ে খালেদা জিয়াকে স্বাগত জানান।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রেজাউল করিম, সোনারগাঁও থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফরসহ তার সমর্থিত হাজারো নেতাকর্মী এতে উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে কাঁচপুরে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান দিপু ভূইয়া ও তার সমর্থক, মদনপুর পয়েন্টে বিএনপির সহআন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, সাবেক এমপি আতাউর রহমান খান আঙ্গুর ও তার লোকজন অবস্থান করে।

এছাড়া মেঘনা টোলপ্লাজা এলাকায় সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম মান্নান ও তার লোকজন অবস্থান নিয়ে স্বাগত জানান। এদিকে খালেদা জিয়াকে স্বাগত জানাতে নেতাকর্মী মহাসড়কে অবস্থান নেয়ায় মহাসড়কে দেখা দিয়েছে তীব্র যানজট। যানজটে কাঁচপুর ও মেঘনা টোলপ্লাজা এলাকায় প্রায় আধাঘণ্টা আটকা পড়ে থাকে খালেদা জিয়ার গাড়ি বহর।

ভাঙচুর করা হয় বিএনপি চেয়ারপারসনের গাড়িবহরের সঙ্গে থাকা গণমাধ্যমের গাড়িও।

কাঁচপুরে খালেদা জিয়ার পক্ষে ব্যাপক শোডাউন
সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে সড়কপথে নারায়ণগঞ্জের উপর দিয়ে যাওয়ার সময় ব্যাপক শোডাউন করেছে নারায়ণগঞ্জের বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। আজ শনিবার সকাল থেকে নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড থেকে শুরু করে কাঁচপুর পর্যন্ত এ শোডাউন করেছে নেতাকর্মীরা। শোডাউনে আলাদা আলাদাভাবে বিভিন্ন স্পটে নেতাকর্মী নিয়ে অবস্থান করতে দেয়া যায়।

জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, বিএনপি নেতা অখিল উদ্দিন ভূইয়া, নাসিক ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইকবাল হোসেন, রাকিব দেওয়ানসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সাইনবোর্ড থেকে কাঁচপুর ব্রিজ পর্যন্ত হাজারো নেতাকর্মী পথের দুপাশে দাঁড়িয়ে নেত্রীর সফরকে সফল করতে নানা শ্লোগান দেন। নেতা-কর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড, সানারপাড়, মৌচাক, মাদানীনগর মাদরাসা, শিমরাইল মোড় ও কাঁচপুর ব্রিজের পশ্চিম পাশসহ বিভিন্ন পয়েন্টে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি, মহানগর বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মী ও তাদের অনুগত নেতাকর্মীরা সকাল থেকেই জড়ো হন নেত্রীর আগমন বিভিন্ন ব্যানার, ফেস্টুন ছবি নিয়ে।

স্বেচ্ছাসেবক দল, যুবদল ও ছাত্রদলের পক্ষ থেকে শতাধিক মটরবাইক নিয়েও নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়াকে নারায়ণগঞ্জ পার করে দেন।

দুপুর ১টা ২০ মিনিটে কাঁচপুর ব্রিজ অতিক্রম করেন খালেদা জিয়া।

 

Comments

comments